সাইপ্রাস

সাইপ্রাসে আন্তর্জাতিক সুরক্ষা সংক্রান্ত  প্রশাসনিক আদালতের সামনে আবদেনকারীদের ভিড়৷ ছবি:আরাফাতুল ইসলাম/ডয়েচে ভেলে
সাইপ্রাসে আন্তর্জাতিক সুরক্ষা প্রশাসনিক আদালতের সামনে বাংলাদেশি আশ্রয়প্রার্থীরা৷ ছবি: আরাফাতুল ইসলাম
১৯৭৪ সাল থেকে সাইপ্রাস দুটি ভাগে বিভক্ত: উত্তরের অংশ (টিআরএনসি) যেটি তুরস্কের অধীনে রয়েছে। দক্ষিণ অংশ বা সাইপ্রাস প্রজাতন্ত্র একটি স্বাধীন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য দেশ। ছবি: ফ্লিকার
সাইপ্রাসে আন্তর্জাতিক সুরক্ষা প্রশাসনিক আদালতের সামনে আশ্রয়প্রার্থীরা৷ ছবি: আরাফাতুল ইসলাম৷
পুরনারা শিবিরের গেটের সামনে অপেক্ষায় দুই বাংলাদেশি আশ্রয়প্রার্থী | ছবি: আরাফাতুল ইসলাম
উত্তর সাইপ্রাসে কয়েকজন বাংলাদেশ অভিবাসীর সাথে কথা বলছেন ডয়পে ভেলের অনুপম দেব কানুনজ্ঞ৷ ছবি: আরাফাতুল ইসলাম
Dউত্তর সাইপ্রাসে বসবাসরত বাংলাদেশি নারীদের সাথে কথা বলছেন ডয়চে ভেলের আরাফাতুল ইসলাম৷ ফটো: অনুপম দেব কানুনজ্ঞ
সাইপ্রাসের নিকোসিয়ায় রয়েছে এক বিশেষ আদালত৷ এই প্রশাসনিক আদালত শরণার্থীদের নিয়ে কাজ করে৷
টার্কিশ রিপাবলিক অফ নর্দার্ন সাইপ্রাসের (টিআরএনসি) একমাত্র বাংলা দোকানের মালিক ইমাম হোসেন (বাঁ দিক থেকে প্রথমে)৷  ইমাম এবং অন্যদের সঙ্গে কথা বলছেন ডয়চে ভেলের সাংবাদিক আরাফাতুল ইসলাম৷ ছবি: অনুপম দেব কানুনজ্ঞ
সাইপ্রাসের রাজধানী নিকোসিয়ায় অবস্থিত শরণার্থী ক্যাম্পের সামনে আশ্রয় চাইতে আসা দুই বাংলাদেশির সাথে কথা বলছেন ডয়চে ভেলের সাংবাদিক আরাফাতুল ইসলাম৷ ছবি: অনুপম দেব কানুনজ্ঞ
সাইপ্রাসের রাজধানী নিকোসিয়ায় অবস্থিত পুরনারা শরণার্থী ক্যাম্পে সামনে বাংলাদেশি অবিবাসন-প্রত্যাশীদের সাথে কথা বলছেন ডয়চে ভেলের সাংবাদিক অনুপম দেব কানুনজ্ঞ৷
সাইপ্রাসে বসবাসরত কয়েকজন বাংলাদেশি নারী অভিবাসীর সাথে কথা বলছেন ডয়চে ভেলের সাংবাদিক আরাফাতুল ইসলাম৷