২০২০ সালের ২৬শে আগস্ট আফগানিস্তানের পারওয়ান প্রদেশের চারিকর শহরে ভয়াবহ বন্যার পর নিজের জিনিসপত্র খুঁজছেন একজন আফগান ব্যক্তি৷Photo: EPA/JAWAD JALALI
২০২০ সালের ২৬শে আগস্ট আফগানিস্তানের পারওয়ান প্রদেশের চারিকর শহরে ভয়াবহ বন্যার পর নিজের জিনিসপত্র খুঁজছেন একজন আফগান ব্যক্তি৷Photo: EPA/JAWAD JALALI

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর একটি নতুন ‘ডাটা ভিজ্যুয়ালাইজেশন’ চালু করেছে৷ এর মাধ্যমে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে কীভাবে উদ্বাস্তু মানুষের সংখ্যা বাড়ছে এবং যারা এরই মধ্যে এ কারণে উদ্বাস্তু হয়েছেন তাদের জীবন কতটা ঝুঁকির মুখে রয়েছে, তা জানা সম্ভব হচ্ছে৷

২২ শে এপ্রিল ছিলো ‘পৃথিবী দিবস’৷ নতুন ডাটা ভিজ্যুয়ালাইজেশন এর নাম দেয়া হয়েছে, ‘ডিসপ্লেসড অন দ্য ফ্রন্টলাইনস অফ দ্য ক্লাইমেট এমারজেন্সি৷’ ইউএনএইচসিআর এক বিবৃতিতে জানায়, এর মাধ্যমে জানা যাচ্ছে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে অন্যসব হুমকির কারণে গৃহহীন হচ্ছে মানুষ এবং যারা এরই মধ্যে উদ্বাস্তু হয়েছেন, তাদের জীবন কতটা ঝুঁছকির মুখে রয়েছে৷

প্রাকৃতিক দুর্যোগে দারিদ্র এবং নিরাপত্তাহীনতা বাড়ছে

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ডাটা ভিজুয়ালাইজেশন দেখাচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সৃষ্ট বিপর্যয়গুলো কীভাবে দারিদ্র্য, খাদ্য নিরাপত্তাহীনতাকে আরো ভয়াবহ পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিচ্ছে৷ কীভাবে প্রাকৃতিক উৎস থেকে মানুষকে বঞ্চিত করছে৷ এর ফলে বিশ্বজুড়ে অস্থিতিশীলতা এবং সহিংসতা বাড়ছে৷ 

বিশ্বজুড়ে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷ কিন্তু যেসব দেশে দারিদ্র্য ও সংঘাতের কারণে মানুষ এলাকা ছেড়ে যাচ্ছে সেসব দেশে আরও ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে বলে আশংকা করছে ইউএনএইচসিআর৷ 

ডাটা ভিজুয়ালাইজেশন আফগানিস্তানের উদাহরণ তুলে ধরেছে৷ যেখানে দেখানো হয়েছে, প্রায়ই খরা আর বন্যা হচ্ছে৷ দেশটিতে গত কয়েক দশক ধরে সংঘাতময় পরিস্থিতি বিরাজ করছে৷ ফলে অনেক মানুষ সংঘাতপূর্ণ এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে গিয়েছে৷ কিন্তু এসব লাখো মানুষও এই বছর খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগবে বলে মনে করছে ইউএনএইচসিআর৷ 

এছাড়া বুরকিনা ফাসোতে সহিংসতার কারণে যারা গৃহহীন হয়েছেন, সেইসব দরিদ্র এলাকাগুলোতে খরা দেখা দেবে৷ মোজাম্বিকও সংঘাতময় পরিস্থিতির মধ্যে আঘাত হেনেছে বেশ কিছু প্রাকৃতিক দুর্যোগ৷ একের পর এক ঘুর্ণিঝড়ে বিপর্যস্ত দেশটি৷ সহিংসতা এবং অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণে দেশের উত্তরে আশ্রয় নিয়েছে লাখো মানুষ৷ 

মিয়ানমারে সংঘাতপূর্ণ এলাকা থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ১০ লাকেরও বেশি রোহিঙ্গা৷ মিয়ানমার এখন প্রায়ই ঘুর্ণিঝড় আর বন্যার কবলে পড়ছে৷ 

উদ্বাস্তু এবং শরণার্থীদের ঝুঁকি কমানোই মূল লক্ষ্য

ইউএনএইচসিআর বলছে, দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে উদ্বাস্তু এবং গৃহহীন মানুষদের ঝুঁকি কমাতে কাজ করছে তারা৷ বিশ্বের সব দেশকে একসাথে এই কাজে সহায়তার আহ্বান জানিয়েছে তারা৷ এছাড়া সব দেশকে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে উদ্বাস্তু মানুষদের রক্ষায় এবং সহযোগিতায় যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে তারা৷ 

এপিবি/এমএ
















 

অন্যান্য প্রতিবেদন