২০২১ সালের ২রা মে ফুটবল ক্লাব স্যাম্পডোরিয়া এবং এস রোমার মধ্যকার ম্যাচ চলাকালীন সময়ে তোলা এব্রিমা ডারবোর একটি ছবি। ক্রেদীটঃ AS ROMA via ANSA
২০২১ সালের ২রা মে ফুটবল ক্লাব স্যাম্পডোরিয়া এবং এস রোমার মধ্যকার ম্যাচ চলাকালীন সময়ে তোলা এব্রিমা ডারবোর একটি ছবি। ক্রেদীটঃ AS ROMA via ANSA

গাম্বিয়া বংশোদ্ভূত মিডফিল্ডার এব্রিমা ডারবো কৈশোরে লিবিয়া সীমান্ত হয়ে নৌকায় করে ইটালিতে এসেছিলেন। গত ২রা মে ইটালির ফুটবল ক্লাব এস রোমার সাথে চুক্তিবুদ্ধ হয়ে ইটালিয়ান সেরি এ লিগে তার ক্যারিয়ার শুরু করেন।

২০০১ সালে গাম্বিয়ায় জন্ম নেয়া এব্রিমা ১৪ বছর বয়সে দেশ ত্যাগ করেন। তার পরিবারে খাদ্যাভাব ছিলো এবং নানান সমস্যায় দিন কেটেছে। তার মা, এক ভাই এবং দুই বোনকে (তার বাবা কয়েক বছর আগে মারা গিয়েছিলেন৷) বিদায় জানিয়ে উন্নত ভবিষ্যতের খোঁজে ইউরোপের পথে যাত্রা শুরু করেন।

 সিসিলিতে পৌঁছানোর জন্য অভিবাসীদের বহন করা নৌকায় চড়ার আগে তাকে লিবিয়ার একটি বন্দিশিবিরে আটকে রেখে নির্যাতন করা হয়েছিলো।

২রা মে রোববার ইটালির জেনোয়া মারাসি স্টেডিয়ামে এস রোমার হয়ে খেলতে নেমে দেশটির শীর্ষ ফুটবল লিগ সেরি এ তে তার যাত্রা শুরু হয়। 

ত্যাগ এবং ধৈর্য্যের দীর্ঘ যাত্রা

গাম্বিয়ার বাকোতেহ অঞ্চলে উপচে পড়া ভিড় ঠেলে একটি বাসে যাত্রা শুরু করে ইটালির জেনোয়াতে সেরি এ লিগে অভিষেক পর্যন্ত এই অ্যাথলেটকে একটি অবিশ্বাস্য সফরের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। যাত্রাপথে লিবিয়ায় মানব পাচারকারীরা তাকে একটি বন্দিশিবিরে নিয়ে গিয়ে প্রচণ্ড নির্যাতন ও মারধোর করেছিলো। দুর্ভিক্ষ ও যুদ্ধ থেকে পালিয়ে আসা এমন আরও অনেক অভিবাসীর সাথে পরে নৌকায় করে ইটালির সিসিলিতে পৌঁছাতে সক্ষম হন।

এই দ্বীপে পৌঁছানোর পর তাকে অপ্রপাতবয়স্কদের জন্য নির্ধারিত অনেকগুলো এসপিআরএআর বা (শরণার্থী ও আশ্রয় প্রার্থীদের সুরক্ষা ব্যবস্থা) কেন্দ্রের মধ্যে একটিতে নেওয়া হয়েছিলো। সে সময় তার উচ্চতা ছিল প্রায় ১.৮-মিটার কিন্তু ওজন ছিল ৫০ কেজি। 

পরবর্তীতে তাকে লাজিও অঞ্চলের রিয়েতি এলাকায় একটি পরিবারের সাথে বসবাসের জন্য স্থানান্তর করা হয় এবং সেখানে আবার তার ফুটবলের অনুশীলন শুরু হয়। উল্লেখ্য যে, গাম্বিয়াতে খুব জনপ্রিয় একটি খেলা ফুটবল। 

বাস্তবে রূপ নেয়া একটি স্বপ্ন

আস্ক ইয়ং রিয়েতি নামক একটি সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত প্রীতি ফুটবল ম্যাচ চলাকালে এস রোমা দলের প্রতিভা স্কাউটের নজরে আসেন এব্রিমা। প্রতিভা স্কাউট টিম তার খেলার দক্ষতা পর্যবেক্ষণ করতে শুরু করে। শেষ পর্যন্ত তারা এস রোমার মালিক জেমস পালোত্তা কে বুঝিয়ে এই তরুণ মিডফিল্ডারের জন্য বিনিয়োগ করতে রাজি করান । এব্রিমা এএস রোমার ট্রিজোরিয়া ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ শুরু করে পরবর্তীতে কোপা ইটালিয়া অনূর্ধ্ব -২১ দলে সুযোগ পান। কিন্তু প্রশাসনিক অবস্থা অর্থাৎ রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন মঞ্জুর হতে দীর্ঘ সময় লাগায় এব্রিমাকে ক্লাবটির সদস্য বানাতে এস রোমাকে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়েছিলো। 

প্রশাসনিক ঝামেলা দ্রুত সমাধান করতে ট্রাইব্যুনাল তার জন্য গৃহশিক্ষক নিয়োগের পাশাপাশি ফিফাকেও এব্রিমার জন্য হস্তক্ষেপ করতে হয়েছিলো। এব্রিমা ডারবো আনুষ্ঠানিকভাবে এখন এস রোমার খেলোয়াড়। তিনি বছরে ৫০ হাজার ইউরো উপার্জন করবেন যার প্রায় সম্পূর্ণ অংশ বাড়িতে তার মাকে পাঠাবেন। এস রোমার সাথে অভিষেকের পর এই মিডফিল্ডারের লক্ষ্য ভবিষ্যতে ফুটবলে শক্ত অবস্থান গড়ে তোলা। 



এমএইউ/এপিবি (আনসা)


 

অন্যান্য প্রতিবেদন