টিউনিশিয়া কর্তপক্ষ প্রায়ই ভূমধ্যসাগর থেকে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের উদ্ধার করে। ফটো: রয়র্টাস/হানি আমারা
টিউনিশিয়া কর্তপক্ষ প্রায়ই ভূমধ্যসাগর থেকে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের উদ্ধার করে। ফটো: রয়র্টাস/হানি আমারা

টিউনিশিয়াির নৌবাহিনীর সদস্যরা রোববার ভূমধ্যসাগর থেকে ১৭৮ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে। সেসময় তারা দুইজনের মৃতদেহও উদ্ধার করে।

উদ্ধারকৃতরা বাংলাদেশ, ইরিত্রিয়া, মিশর, মালি ও আইভরি কোস্টের নাগরিক।

নৌবাহিনীর মুখপাত্র মোহামেদ যেকরি জানান, অভিবাসনপ্রত্যাশীরা নৌকায় করে লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপের উদ্দেশে যাত্রা করছিোল। এ সময় তাদের নৌকা ভেঙ্গে গেলে সেটি ডুবে যেতে থাকে। সংকেত পেয়ে নৌবাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের উদ্ধার করে।

গত দুই দিনে ভূমধ্যসাগর থেকে এতো বিপুল সংখ্যক অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধারের দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এর আগে গত শুক্রবার টিউনিশিয়ার নৌবাহিনীর সদস্যরা ভূমধ্যসাগর থেকে ২৬৭ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করে। তাদের বেশিরভাগ বাংলাদেশের নাগরিক বলে জানায় কর্তৃপক্ষ।

নৌকায় করে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টার ঘটনা বাড়ছে। বিপজ্জনক পথ পাড়ি দিতে গিয়ে প্রায়ই তাদের দুর্ঘটনার মুখে পড়তে হয়।

জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআরের তথ্য মতে,  চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১১ হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশী লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর হয়ে ইউরোপের পথে যাত্রা করেছে। এ সংখ্যা গতবছরের একই সময়ের তুলনায় শতকরা ৭০ভাগ বেশি। 

এদিকে গত ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ মে পর্যন্ত এভাবে সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে মোট ৭৬০জন প্রাণ হারিয়েছে। গত বছর প্রাণ হারিয়েছিল এক হাজার ৪০০ জন।

আরআর/এপিবি (এপি)    

 

অন্যান্য প্রতিবেদন