ছবি: রয়টার্স
ছবি: রয়টার্স

শনিবার থেকে ইউরোপগামী দুটি নৌকা টিউনিসিয়ার তীরে ডুবে যাওয়ায় ৬০ জনেরও বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যুর আশঙ্কা করছেন উদ্ধারকর্মীরা। ইতিমধ্যে, সাগর থেকে উদ্ধার হয়েছে ৪৯টি মৃতদেহ।

গত পাঁচ দিনে টিউনিসিয়ার পাশের ভূমধ্যসাগরের অংশে মোট চারটি নৌকাডুবি হয়েছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় নিরাপত্তা বাহিনীর এক মুখপাত্র। উত্তর আফ্রিকার তীর ধরে ইটালির দিকে রওয়ানা হওয়া অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ভিড় থাকে টিউনিসিয়া ও লিবিয়ায়।

গত ৭২ ঘণ্টায়, সাগরে মোট নিখোঁজের সংখ্যা ৬০। এখন পর্যন্ত, স্ফাক্স শহরের তটবর্তী অঞ্চল থেকে ২১টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সব মিলিয়ে, মোট মৃতদেহ উদ্ধারের সংখ্যা বর্তমানে ৪৯।

চলতি গ্রীষ্মের শুরু থেকে এই বিপজ্জনক পথে নেমেছে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বাড়ন্ত ঢল, সাথে তাল মিলিয়ে বেড়েছে মৃত্যুর হারও।

শনিবারে দেশটির রেড ক্রিসেন্ট সংস্থা জানায় যে ৬০ এর বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশী এই পথে নিখোঁজ রয়েছেন। আবহাওয়া তুলনামূলকভাবে ভাল থাকায় এই সময়ে বহু অভিবাসনপ্রত্যাশীরা ইউরোপের উদ্দেশে রওয়ানা দিচ্ছেন বলে জানায় রেড ক্রিসেন্ট। পাশাপাশি, অভিবাসনপ্রত্যাশীদের জন্য বরাদ্দ শিবিরের মান খারাপ হতে থাকায় ইউরোপে পাড়ি দেবার হার বেড়েছে বলেও ধারণা বিশেষজ্ঞদের।

নিখোঁজ বাংলাদেশিরাও

টিউনিসিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তরফে জানানো হয় যে, নিখোঁজ ব্যক্তিরা মূলত সাব-সাহারার দেশ, যেমন সুদান, এরিট্রিয়া, চাড ও মিশরের মানুষ। এর মধ্যে কয়েকজন বাংলাদেশিও রয়েছেন বলে জানায় তারা।

কিন্তু কোনো নির্দিষ্ট সংখ্যা পাওয়া যায়নি।

জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত, বিপজ্জনক উত্তর আফ্রিকান পথে এখন পর্যন্ত ১১ হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশী পাড়ি দিয়েছে বলে জানাচ্ছে জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর।

এসএস/কেএম (ডিপিএ, এএফপি, এপি)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন