ইটালির সাগরে আলজেরীয় অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নৌকা। ছবি সূত্র আনসা।
ইটালির সাগরে আলজেরীয় অভিবাসনপ্রত্যাশীদের নৌকা। ছবি সূত্র আনসা।

সাগর পেরিয়ে ইউরোপে আসতে চাওয়া মানুষের হার সেভাবে না বাড়লেও বেড়েছে এই পথে মৃত্যুর হার। কতটা বিপজ্জনক এই পথ তা জানা সত্ত্বেও থামছে না মানুষের ঢল।

ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন বা আইওএমের সাম্প্রতিক প্রতিবেদন জানাচ্ছে যে, ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে ইউরোপগামী অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সাগরে মৃত্যুর সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে।

'মিসিং মাইগ্র্যান্টস' শিরোনামের এই প্রতিবেদনে থাকছে সাগরপথসহ অন্যান্য পথে ইউরোপে আসতে চাওয়া অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বিষয়ে নানা তথ্য।

প্রতিবেদনটি জানাচ্ছে যে, মৃত্যুর হার এতটা বাড়লেও সাগরপথে ইউরোপে পাড়ি দিতে চাওয়া মানুষের সংখ্যা সমানুপাতে বাড়েনি। এই সংখ্যা বেড়েছে ৫৬%।

২০২০ সালে সাগরপথে ইউরোপে আসতে গিয়ে প্রাণ হারান ৪০১জন। তা বেড়ে ২০২১ সালে হয়েছে ৯২৯জন।

সবচেয়ে বেশি বিপজ্জনক মধ্য ভূমধ্যসাগরের পথটি, যেটি রয়েছে লিবিয়া ও ইটালির মাঝামাঝি। এই পথে প্রাণ হারিয়েছেন ৭৪১জন অভিবাসনপ্রত্যাশী।

আইওএম জানাচ্ছে, মৃতের প্রকৃত সংখ্যা হয়ত এর চেয়ে আরো বেশি হতে পারে, কারণ বহু জাহাজডুবি বা নৌকাডুবির খবর কর্তৃপক্ষ পায় না, তাই নথিভুক্ত হয় না।

এই পথে নজরদারি বাড়ানোর কথা বলে আসছে বেশ কিছু মানবাধিকার সংস্থা ও আন্তর্জাতিক সংগঠন, কিন্তু সেভাবে কোনো সংগঠিত উদ্ধার পরিষেবা না থাকায় মৃত্যুহার কমানো যাচ্ছে না বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

উত্তর আফ্রিকার ওপর চাপ

ইউরোপীয় রাষ্ট্রগুলি সাধারণত উত্তর আফ্রিকার দেশগুলির নিজস্ব উদ্ধার পরিষেবার ওপর বেশি নির্ভরশীল।

২০২১ সালের প্রথমার্ধ্বে নিজেদের উদ্ধার অভিযানের সংখ্যা আগের তুলনায় ৯০ শতাংশ বাড়িয়েছে টিউনিশিয়া কর্তৃপক্ষ। লিবিয়া কর্তৃপক্ষও ১৫ হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে, জানাচ্ছে প্রতিবেদনটি।

বেসরকারি সংস্থাকে চাপ

অভিবাসন বিষয়ক গবেষক মাত্তেও ভিলা জানান যে এবছর মোট নয়টি বেসরকারি সংস্থাচালিত জাহাজ আটক করেছে ইটালি।

ইটালি, স্পেন, মালটা ও গ্রিসের মতো ভূমধ্যসাগরের তীরবর্তী রাষ্ট্রগুলি অভিবাসনের ঢল ঠেকাতে প্রায়ই অন্যান্য রাষ্ট্র বা সংগঠনের কাছে সাহায্য চেয়ে থাকে। কিন্তু সাগরে এইসব রাষ্ট্রের কর্তৃপক্ষের ভূমিকার বিষয়ে উঠেছে নানা অভিযোগ।

সম্প্রতি, ইউরোপীয় ইউনিয়নে প্রশিক্ষিত লিবিয়ান জল সীমান্তরক্ষীদের একটি ভিডিও প্রকাশ পায়, যেখানে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের একটি নৌকার দিকে গুলি চালাতে দেখা যায় তাদের।

এমন নানা ধরনের ঘটনার কথা বিশেষজ্ঞরা বলে এলেও সাগরে অভিবাসনের পথ নিরাপদ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের অভাব রয়েছে বলে জানান আইওএম মুখপাত্র সাফা এমসেহলি।

এসএস/এসিবি (এপি, আইওএম)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন