মৌরিতানিয়ার নুয়াঢিবৌ অঞ্চল | ছবি: ইমাগো
মৌরিতানিয়ার নুয়াঢিবৌ অঞ্চল | ছবি: ইমাগো

ক্যানারি দ্বীপের উদ্দেশ্যে যাত্রা করা একটি নৌকার যাত্রীদের মধ্যে নিখোঁজ ৪৭ জন। সাত যাত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

ইন্টারন্যাশনাল অর্গ্যানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন বা আইওএম-এর নিকোলাস হোখার্ট জানান যে আফ্রিকার পশ্চিম সাহারা অঞ্চলের লায়োন থেকে এই নৌকাটি 'সম্ভবত' ক্যানারি দ্বীপের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেছিল।

কিন্তু ইঞ্জিন খারাপ হবার পর দুই সপ্তাহ ধরে ভূমধ্যসাগরে ভাসতে থাকে নৌকাটি। সোমবার মৌরিতানিয়ার নুয়াঢিবৌয়ের কাছাকাছি অঞ্চলে দেশটির সাগর সীমান্তরক্ষীরা নৌকাটি আবিষ্কার করে।

উদ্ধার হওয়া যাত্রীরা জানান, নৌকাটিতে দুই শিশু ও এক কিশোরীসহ মোট ৫৪জন যাত্রা শুরু করেছিলেন। আইওএম জানাচ্ছে যে, নৌকায় থাকা ব্যক্তিরা মালি, সেনেগাল, আইভরি কোস্ট, মরিশাস ও গিনির নাগরিক।

সীমান্তরক্ষী সূত্রের বরাত দিয়ে বার্তাসংস্থা এএফপি জানায়, নৌকা থেকে উদ্ধার হয়েছেন ছয়জন পুরুষ ও এক নারী। রেডক্রসের সহযোগিতায় তাদের চিকিৎসা শুরু হয় ও চারজনকে হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

সাগরে নিখোঁজ জীবন

সীমান্তরক্ষীদের আশঙ্কা, যারা নিখোঁজ তারা পানি ও খাবারের অভাবে মারা গেছেন।

নৌকার যে যাত্রীরা বেঁচে ফিরেছেন, তারা জানিয়েছেন, মৃতদের সাগরে ফেলে দিয়েছেন তারা। আইওএম-এর হোখার্ট জানান যে সাধারণত 'সব ঠিকঠাকভাবে' চললে কয়েক দিনের মধ্যে নৌকাটি ক্যানারি দ্বীপে পৌঁছাতে পারতো।

গত কয়েক বছরে আফ্রিকা থেকে স্পেনের ক্যানারি দ্বীপের এই যাত্রাপথে বেশ কিছু দুর্ঘটনা ঘটেছে। ১০০ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পথে সাগরের জোয়ার খুব শক্তিশালী হওয়ায় বিপদের আশঙ্কা প্রবল। পাশাপাশি, নৌকায় ক্ষমতার চেয়ে বেশি ভিড় থাকলে বিপদ বাড়ে।

চলতি বছরে এই পথে যাত্রা করতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ৩৭৬জন। ২০২০ সালে, এই পথে প্রাণ হারিয়েছেন এক হাজার ৮৫১জন।

এই অঞ্চলে কর্মরত অভিবাসী অধিকার সংগঠনগুলির মতে, করোনা সংকট অভিবাসনের ঢলকে আরো বাড়িয়েছে।

এসএস/এসিবি (এএফপি)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন