সংসদে বক্তব্যরত চেক প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেজ বাবিস। ছবিঃ রয়টার্স
সংসদে বক্তব্যরত চেক প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেজ বাবিস। ছবিঃ রয়টার্স

চেক প্রজাতন্ত্রের প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেজ বাবিস মঙ্গলবার বলেছেন, “ইউরোপীয় ইউনিয়নে আফগান শরণার্থীদের জন্য "সত্যিই কোনো স্থান নেই। তারা যেন আফগানিস্তানে ভালোভাবে থাকতে পারে সে লক্ষ্য কোনো সমাধান খুঁজে বের করা উচিত"।

চেক প্রজাতন্ত্রের দক্ষিণ-পূর্ব অংশের লেডনিস ক্যাসলে অস্ট্রিয়ার চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ এবং স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী এডুয়ার্ড হেগারের সঙ্গে সাক্ষাতের পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেজ বাবিস বলেন, “ইউরোপে আফগান শরণার্থীদের জন্য সত্যিই কোনো জায়গা নেই।”

বাবিস আরও যোগ করেন, "অতীতের মতো এর্দোয়ানের সাথে (তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ান) আলোচনা করা একটি বিকল্প হতে পারে, কিন্তু আমি মনে করি না এটি কোনো ভালো সমাধান হবে।"

এই বিলিওনিয়ার ডানপন্থি নেতা ইইউ এবং তুরস্কের মধ্যে ২০১৬ সালের অভিবাসন চুক্তির কথাও উল্লেখ করেন, যার আওতায় আঙ্কারা ত্রিশ লাখেরও বেশি অভিবাসীদের সাহায্যের জন্য অর্থের বিনিময়ে লক্ষ লক্ষ সিরিয়ান শরণার্থীকে ইউরোপে যাওয়া থেকে বিরত রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, "একটি ভালো বিকল্প হলো এমন একটি সমাধান যা মানুষকে আফগানিস্তানে ভালোভাবে থাকার সুযোগ দেবে।"

অস্ট্রিয়ার চ্যান্সেলর কুর্জ ঘোষণা করেন, “অস্ট্রিয়া আফগানিস্তানের পার্শ্ববর্তী দেশগুলিকে আফগান শরণার্থীদের সাহায্য করার জন্য ১৮ মিলিয়ন ইউরো অর্থ সাহায্যের পরিকল্পনা করেছে।”

শরণার্থীদের আগমন প্রসঙ্গে চ্যান্সেলর কুর্জ যোগ করেন, "আমরা তাদের কষ্ট লাঘবের চেষ্টা করব, কিন্তু আমরা সম্মত হয়েছি যে ২০১৫ সালের সিরিয়ান শরণার্থী সংকটের মতো নতুন কোন সংকটের পুনরাবৃত্তি হওয়া উচিত নয়। আমরা অবৈধ অভিবাসনের বিরুদ্ধে এবং পাচারকারীদের বিরুদ্ধে লড়াই করব।"

রক্ষণশীল এই চ্যান্সেলর আরও যোগ করেন, "আমাদেরকে একটি আঞ্চলিক সমাধান খুঁজে বের করতে হবে যেন ইউরোপের দিকে নতুন কোনো অভিবাসী স্রোত না আসে"।



এমএইউ/এসএস


 

অন্যান্য প্রতিবেদন