ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে ইংল্যান্ডে পৌঁছেছেন একদল আশ্রয়প্রত্যাশী৷ ছবিটি গতমাসে তোলা৷ ছবি: রয়টার্স
ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে ইংল্যান্ডে পৌঁছেছেন একদল আশ্রয়প্রত্যাশী৷ ছবিটি গতমাসে তোলা৷ ছবি: রয়টার্স

ফ্রান্স থেকে অভিবাসীদের ইংল্যান্ডে পাচারের ‘জঘন্য বাণিজ্য’ বন্ধে ব্রিটেনের সম্ভাব্য সবকিছু করতে হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন৷ সম্প্রতি আশ্রয়প্রার্থীদের ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে ইংল্যান্ডে প্রবেশের হার বেড়ে যাওয়ার পর একথা বলেন তিনি৷

ব্রিটিশ সংসদে বুধবার এক রক্ষণশীল এমপি ফ্রান্স থেকে আসা নৌকাগুলো আবার সেদেশে ফেরত পাঠানোর মতো সরাসরি উদ্যোগ নেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে জনসন এভাবে চ্যানেল পাড়ি দেয়ার সঙ্গে জড়িত গ্যাংস্টারদের নির্মম আচরণ এবং অপরাধচক্রের হোতাদের নিন্দা করেন৷

তিনি জানান যে অপরাধীরা ‘‘হতাশ ভীতসন্ত্রস্ত মানুষদের’’ কাছ থেকে টাকা নিয়ে তাদেরকে ‘‘অত্যন্ত বিপজ্জনকভাবে’’ ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করাচ্ছে৷  

ব্রিটিশ সরকার জানিয়েছে, আগস্টের শেষদিকে একদিনেই কমপক্ষে ৮২৮ জন এভাবে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে ব্রিটেনে পৌঁছেছে যা এক রেকর্ড৷ আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় পাচারকারীরা সেদিনটিকে বেছে নিয়েছিল৷ 

গত সোমবার একদিনে ৭৮৫ জন ফ্রান্স থেকে এভাবে ইংল্যান্ডে পৌঁছেছে বলে জানিয়েছে হোম অফিস৷ 

এভাবে নৌকায় করে অভিবাসন প্রত্যাশীদের হার বেড়ে যাওয়ায় বেশ বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে ব্রিটিশ সরকার কেননা দেশটি ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপের কথা বলেছিল৷ 

সংসদে অবশ্য ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রীতি পাটেলের প্রশংসা করেছেন জনসন৷ তিনি মনে করেন, অভিবাসন প্রত্যাশীরা যাতে ফরাসি উপকূল ছাড়তে না পারে সেটা নিশ্চিত করতে সম্ভাব্য সবচেয়ে সেরা উপায়ে কাজ করছেন পাটেল৷  

এদিকে, ব্রিটেনের সঙ্গে সহযোগিতার অংশ হিসেবে ফরাসি সরকার উপকূলে নিয়োজিত পুলিশ সদস্যের সংখ্যা দ্বিগুণ করেছে৷ ফরাসি সরকার দশ হাজারের বেশি ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রমের চেষ্টা ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে বলেও জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ৷

ব্রিটিশ সাংসদরা একটি আইন সংশোধনের প্রস্তাব যাচাইবাছাই করছেন যা অনুমোদন হলে দেশটিতে আশ্রয় চেয়ে আবেদনের প্রক্রিয়া এবং থাকা অনেক কঠিন হয়ে যাবে৷

এআই/এসএস (এএফপি)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন