ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে অভিবাসীদের দেখভাল করছে স্পেন কর্তৃপক্ষ | ছবি: আর্কাইভ, ইপিএ
ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে অভিবাসীদের দেখভাল করছে স্পেন কর্তৃপক্ষ | ছবি: আর্কাইভ, ইপিএ

চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন অবধি ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ)এক লাখ তিন হাজার ৮৯৫টি আশ্রয়ের আবেদন জমা পড়েছে৷ গতবছরের একই সময়ের তুলনায় এই হার ১১৫ শতাংশ বেশি, আর চলতি বছরের প্রথম তিন মাসের তুলনায় নয় শতাংশ বেশি৷

ইউরোস্টাটের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, গতবছর একই সময়ে আশ্রয়ের আবেদন জমা পড়েছিল ৪৮ হাজার ৩৭০ টি৷   

এই সংখ্যা অবশ্য করোনা মহামারি পূর্ববর্তী সময়ের তুলনায় এখনো কম৷ ২০১৯ সালের একইসময়ে তুলনায় চিন্তা করলে আশ্রয়ের আবেদন ২৮ শতাংশ কমেছে৷ 

চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন অবধি সময়ে দ্বিতীয়বার আশ্রয়ের আবেদনের সংখ্যা কমেছে৷ এবছর এই সময়ে ১৩ হাজার ৮০৫ জন পুনরায় আশ্রয়ের আবেদন করেছিলেন, কেননা তাদের প্রথম আবেদন বাতিল হয়েছিল৷ 

মূলত সিরিয়া, আফগানিস্তান এবং পাকিস্তানের নাগরিক 

ইউরোস্টাটের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের দ্বিতীয় ত্রৈমাসিক সময়কালে আশ্রয়ের আবেদনকারীদের মধ্যে সিরিয়ার নাগরিক সবচেয়ে বেশি, ২০ হাজার ৬৪০ জন৷ এছাড়া আফগানের সংখ্যা ১৩ হাজার ৮৬০ জন এবং পাকিস্তানি চার হাজার ৪৩০ জন৷ এই তিন দেশের নাগরিকদের আশ্রয়ের আবেদনের হার চলতি বছরের প্রথম তিনমাস এবং গতবছরের একই সময়ের চেয়ে বেশি৷  

জার্মানি, ফ্রান্স এবং স্পেনে সবচেয়ে বেশি আবেদন 

চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন অবধি সময়ের মধ্যে জার্মানিতে ২৯ হাজার ৫৪৫টি, ফ্রান্সে ২২ হাজার ১৫টি এবং স্পেনে ১২ হাজার ৩৩৫টি আশ্রয়ের আবেদন জমা পড়েছে৷ সামগ্রিকভাবে ইইউতে যত আবেদন জমা পড়েছে তার মধ্যে ৬১ শতাংশই এই তিনটি দেশে৷

এই সময়ে চার হাজার ২৪০টি অভিভাবকহীন শিশু আশ্রয়ের আবেদন করেছে৷ চলতি বছরের প্রথম তিনমাসের তুলনায় এই হার ১৯ শতাংশ বেশি৷ অভিভাবকহীন শিশুদের অধিকাংশই বেলজিয়াম, অস্ট্রিয়া, জার্মানি এবং বুলগেরিয়ায় আশ্রয়ের আবেদন করেছে৷

এআই/কেএম

 

অন্যান্য প্রতিবেদন