(ফাইল ছবি) একটি ম্যাচ চলাকালে একজন অভিবাসী ফুটবলার। ছবিঃ Swen Pförtner/dpa/picture-alliance
(ফাইল ছবি) একটি ম্যাচ চলাকালে একজন অভিবাসী ফুটবলার। ছবিঃ Swen Pförtner/dpa/picture-alliance

বিভিন্ন দেশ থেকে আসা অভিবাসী ও শরণার্থীদের নিয়ে উত্তর ইটালির মিলান অঞ্চলে যাত্রা শুরু করেছে সান্ত-অমব্রিওজ ফুটবল ক্লাব।

বর্ণবাদের বিরুদ্ধে ফুটবল। বিশ্ব বিখ্যাত ধনী ফুটবলারদের দিয়ে চকচকে বিজ্ঞাপন নয় বরং এই ক্লাব প্রতিষ্ঠার পেছনে মূল অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে লড়া এবং সাংস্কৃতিক বৈচিত্রকে এগিয়ে নেয়া।  

সান্ত-অমব্রিওজ ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরে থেকে আসা উদ্বাস্তু এবং অভিবাসীদের নিয়ে গঠিত প্রথম একক ফুটবল দল যা উত্তর ইটালির ইটালিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের সাথে যুক্ত।

ক্লাবটির ক্রীড়া পরিচালক ড্যানিয়েল রাডুয়াজো বলেন, ‘‘আমরা বিভিন্ন দেশে থেকে আসা অভিবাসীদের নিয়ে গড়া শ্রমিক-শ্রেণীর ফুটবল দল। আমরা মিলান শহরে ক্রীড়া ও সামাজিক কাজের গুরুত্বপূর্ণ উদাহরণ হওয়ার চেষ্টা করছি।’’ 

তিনি আরও বলেন, ‘‘বর্ণবাদসহ সকল প্রকার বৈষম্যের বিরুদ্ধে লড়াই করার একটি বৈধ পন্থা হিসেবে আমরা ফুটবলকে ইন্টিগ্রেশন, সামাজিক বৈচিত্র্য, বিনিময় এবং জ্ঞানের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করার চেষ্টা করছি।’’

২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠিত ক্লাব

অভিবাসী এবং শরণার্থীদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব বাড়ানো এবং তাদেরকে সমাজে সুসংহত হওয়ার সুযোগ দেওয়ার লক্ষ্যে ৫ বছর আগে এই ক্লাবটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। 

তবে ক্লাবটির প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অনেকে এখনো বৈধতা পেতে ইটালীয় আইনের বিরুদ্ধে লড়াই করে চলছেন।

ক্লাবের প্রেসিডেন্ট ডেভিড সালভাদোরি বলেন, ‘‘ইটালীয় ফুটবল ফেডারেশনে আমাদের অধিভুক্তি খুব গুরুত্বপূর্ণ। অন্যদিকে আমাদেরকে ফুটবল ফেডারেশনের বাইরে থাকা দেশের অন্যান্য আইনগুলির সাথে মোকাবিলা করতে হবে। গত ৩০ বছর ধরে এই আইনগুলি ইটালীর অভিবাসন পদ্ধতির রূপ বদলে দিয়েছে। এগুলি দমনমূলক এবং ব্যক্তি স্বাধীনতাবিরোধী আইন৷’’

সান্ত-অমব্রিওজের খেলোয়াড় ইসা ডুম্বিয়া বলেন, ‘‘এখানে আমাদের মালি, মরক্কো, সেনেগাল, গিনি বা ক্যামেরুন থেকে আসা বিভিন্ন বর্ণের মানুষ আছে। আমরা সবাই একসাথে খেলি।’’

এই ফুটবল ক্লাবটি বর্তমানে মিলান শহরজুড়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করেছে।  

অভিবাসী এবং শরণার্থীরা এখন স্থানীয়দের মতো একই দলে খেলছে। 

সমাজে তাদের অবস্থান সুসংহত হওয়ার প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করার জন্য তারা ইটালিয়ান ভাষাও শিখছে। এটি শুধুমাত্র একটি বাণিজ্যিক ক্লাব নয়, বরং ফুটবলের মূল অনুপ্রেরণার বিষয়।



এমএইউ/আরআর


 

অন্যান্য প্রতিবেদন