ট্রেন লাইনে নিহত অভিবাসীদের মৃতদেহ উদ্ধাররত স্থানীয় পুলিশ। ছবিঃ পিকচার এলায়েন্স
ট্রেন লাইনে নিহত অভিবাসীদের মৃতদেহ উদ্ধাররত স্থানীয় পুলিশ। ছবিঃ পিকচার এলায়েন্স

ফ্রান্সে মঙ্গলবার স্থানীয় সময় ভোররাতে একটি আঞ্চলিক ট্রেন চারজন অভিবাসীকে ধাক্কা দিলে তিনজন ঘটনাস্থলেই মারা যান। নিহতরা সবাই আলজেরিয়ার অভিবাসী বলে নিশ্চিত করেছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

ফ্রান্সের দক্ষিণ-পশ্চিমে সাঁ-জঁ-দ্যু-লুজেরের এই ঘটনা প্রসঙ্গে বায়োন অঞ্চলের পাবলিক প্রসিকিউটর জানান, মঙ্গলবার ভোরে ঘটে যাওয়া এই ঘটনাটি একটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। 

ঘটনার পরবর্তী আয়োজিত একটি সংবাদ সম্মেলনে পাবলিক প্রসিকিউটর জেরোম বুরিয়ের বলেন, “দক্ষিণ পশ্চিমের শহর হেন্দায়ে থেকে ঘণ্টায় ৯২ কিলোমিটার গতিতে ছেড়ে আসা আঞ্চলিক ট্রেনটি (টিইআর) সাঁ-জঁ-দ্যু-লুজে ট্রেন স্টেশন থেকে কয়েকশ’ মিটার দূরে চারজন ব্যক্তিকে ধাক্কা দেয়।”

দূর্ঘটনায় তিনজন মারা গেছেন, চতুর্থ ব্যক্তির শরীরের নীচের অংশে এবং পেটে গুরুতর আঘাত পেয়েছেন। তিনি বর্তমানে বাস্ক কোস্ট হাসপাতালে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন আছেন। 

ঘটনাস্থল পর্যবেক্ষণ করছে ফরাসি পুলিশের বিশেষ দল। ছবিঃপিকচার এলায়েন্স
ঘটনাস্থল পর্যবেক্ষণ করছে ফরাসি পুলিশের বিশেষ দল। ছবিঃপিকচার এলায়েন্স

ট্রেন চালক জানিয়েছেন যে বায়োন-হেন্দায়ে অঞ্চলের যেখানে দুর্ঘটনা ঘটেছে সেই অংশটি বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। সেখানে রাত সাড়ে ১০ টা থেকে ভোর ৫ টার মধ্যে কোনো ট্রেন চলাচল করে না।

‘‘তাদেরকে শেষ মুহূর্তে দেখে ধারণা করতে পারি, ভুক্তভোগীরা হয়ত রাতে ট্রেনের প্লাটফর্মে বিশ্রাম নিচ্ছিল বা ঘুমাচ্ছিল,” বলেন চালক৷ 

নিহতদের মধ্যে এখন অবধি একজনের পরিচয় আঙুলের ছাপের সাহায্যে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া গেছে। তিনি ২১ বছর বয়সি এক আলজেরিয়ান, যিনি স্পেনে নথিভুক্ত ছিলেন কারণ সেখানে তিনি দেশত্যাগের নোটিশের আওতায় ছিলেন। অন্য তিনজনের বিস্তারিত পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি।

পাবলিক প্রসিকিউটর জেরোম বুরিয়ের বলেন, ‘‘আমরা যা জানি তা হলো, ভুক্তভোগীরা স্পষ্টতই আলজেরিয়ার নাগরিক এবং তারা অনিয়মিতভাবে ফরাসি অঞ্চলে প্রবেশ করতে চেয়েছিল।" ভুক্তভোগীদের কাছে অন্য একজন পঞ্চম ব্যক্তির কাগজপত্রও পাওয়া গেছে। যার পরিচয় সনাক্ত করা এখনও বাকি রয়েছে।

দূর্ঘটনা থেকে বাঁচতে স্টেশনে থাকা নির্দিষ্ট পথে হাঁটুন


এতোরকিনেকিন নামক একটি অভিবাসী অ্যাসোসিয়েশনের এর মুখপাত্র আমানা ফন্টানের বলেন, "অভিবাসীদের পুলিশ চেক পয়েন্ট এড়াতে রেলপথ ধরে হাঁটা অস্বাভাবিক নয়। এই বিভাগে এরকম অনেক উদাহরণ রয়েছে৷" 

অ্যাসোসিয়েশনের স্বেচ্ছাসেবীদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, "ফ্রান্সের হেন্দায়ে ও সাঁ-জঁ-দ্যু-লুজে স্পেনের ইরু অঞ্চলে গতকাল রাতে পুলিশের উপস্থিতি ব্যাপক উপস্থিতি ছিল৷"

আমানা ফন্টানে স্পষ্ট করে বলেন, "আমি বলছি না যে পুলিশের উপস্থিতির কারণে বা প্রভাবের সাথে এই ঘটনার যোগসাজশ রয়েছে। কিন্তু এটা মনে রাখা উচিত অভিবাসীরা এমন একটি অঞ্চলে এসে পৌঁছে থাকে যেটির সম্পর্কে তাদের কোন ধারণা নেই, তারা না চেনার কারণে প্রায়ই বিভিন্ন এলাকায় হারিয়ে যান। তাই তারা সব উপায়ে চেষ্টা করে পুলিশের জিজ্ঞাসা এড়িয়ে নিরাপদ স্থানের সন্ধান করতে৷"

এই এনজিও কর্মকর্তার মতে, "এই ধরনের ট্র্যাজেডির পুনরাবৃত্তি বন্ধ করতে অভিবাসীদের যাত্রা সুরক্ষিত করতে হবে৷" 

"সীমান্ত অতিক্রম করে মানুষের জীবনের ঝুঁকি নেওয়া স্বাভাবিক নয়," যোগ করেন তিনি৷ 

ফন্টানে বলেন, “বেশ কয়েক মাস ধরে স্পেন থেকে অভিবাসীরা বিডাসোয়া নদী, ইরুন এবং ফরাসি দিকের হেন্দাইয়ের মধ্যে অবস্থিত প্রাকৃতিক সীমানা পেরিয়ে ফ্রান্স পৌঁছানোর চেষ্টা করে আসছে।”

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশন (ইউএনএইচসিআর) এর পরিসংখ্যান অনুসারে, ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে আলজেরিয়া থেকে ৬১৭৩ জন অভিবাসী স্পেনে এসেছেন।



এমএইউ/এআই


 

অন্যান্য প্রতিবেদন