জার্মানিতে দুই আফগান শরণার্থী | ছবি: রয়টার্স
জার্মানিতে দুই আফগান শরণার্থী | ছবি: রয়টার্স

জার্মান সরকারের সহযোগিতায় আগস্ট মাসের পর থেকে এখন পর্যন্ত আরো এক হাজার তিনশ আফগান নাগরিকদের নিরাপদ স্থানে নিয়ে আসা হয়েছে।

সোমবার জার্মান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে এই তথ্য নিশ্চিত করে সংবাদ সংস্থা ফুঙ্কে মিডিয়েনগ্রুপে। 

প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিমানপথে ও সড়কপথে এই আফগানদের নিয়ে আসা হয়। তিনটি চার্টার্ড বিমানে করে মোট সাতশ আফগান নাগরিককে তালেবানের দখলে থাকা আফগানিস্তান থেকে বের করে নিয়ে আসে জার্মান সামরিক বাহিনীর সদস্যরা।

আফগানিস্তানের নিকটবর্তী দেশগুলিতে থাকা জার্মান দূতাবাসগুলি এখন পর্যন্ত জরুরি ভিত্তিতে মোট এক হাজার ৭০টি ভিসা প্রদান করেছে। এর মধ্যে প্রাধান্য পেয়েছেন সেই ব্যক্তিরা যাদের নিরাপত্তা আফগানিস্তানে ঝুঁকির মুখে, বা যারা জার্মান সরকারকে সাহায্য করছিলেন। 

সামরিক অভিযান শেষ হয়ে যাবার পরে এখনও জার্মান কর্তৃপক্ষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে আফগানিস্তানে আটকে পড়া জার্মান নাগরিক ও তাদের সহযোগীদের বের করে আনতে, বলে সেই প্রতিবেদন।

এর মধ্যে রয়েছেন আফগানিস্তানে কর্মরত বিভিন্ন জার্মান প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা, যারা তালেবান শাসনে বিপন্ন বোধ করতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বিশেষ নিরাপত্তার দাবি রাখা মানুষের এই তালিকায় রয়েছেন মোট দুই হাজার ৬০০জন, যাদের পরিবারের সদস্যদের মেলালে মোট বিপন্ন মানুষের সংখ্যা দাঁড়ায় ছয় হাজার ৬০০জন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই তালিকা আর বর্ধিত করা সম্ভব নয়। আরেকটি ভিন্ন তালিকা অনুযায়ী ইতিমধ্যে নিরাপদ গন্তব্যে যাবার অপেক্ষায় রয়েছেন আরো ৪৩০ জার্মান নাগরিক, জানায় মন্ত্রণালয়।

এই অভিযানগুলি সম্পন্ন করতে জার্মান সরকার 'বিভিন্ন স্থানীয় সহযোগীদের সাথে' কাজ করছে বলে জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি, 'নতুন যাত্রাপথের খোঁজ' চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। 

এছাড়া, এইসব বিপন্ন মানুষদের জরুরি পরিষেবা পৌঁছে দিতে সচেষ্ট রয়েছে জার্মান সরকার। জার্মানি যাবার বিমানের টিকিট, সাময়িক বাসস্থান ও বর্তমান প্রয়োজনীয় সামগ্রীও পৌঁছে দিচ্ছে তারা বলে জানায় প্রতিবেদনটি।

এসএস/আরআর (কেএনএ)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন