১১ থেকে ১৫ অক্টোবর বিভিন্ন অভিযানে বাস্ক প্রদেশ থেকে  সাত পাচারকারীকে গ্রেফতার করেছে স্প্যানিশ সিভিল গার্ড। ছবিঃ সিভিল গার্ড
১১ থেকে ১৫ অক্টোবর বিভিন্ন অভিযানে বাস্ক প্রদেশ থেকে সাত পাচারকারীকে গ্রেফতার করেছে স্প্যানিশ সিভিল গার্ড। ছবিঃ সিভিল গার্ড

স্পেন থেকে ফ্রান্সে অভিবাসীদের পাচার করার সন্দেহে স্পেনের বাস্ক প্রদেশের তিনটি অঞ্চল থেকে সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে স্প্যানিশ সিভিল গার্ড। গ্রেপ্তারকৃতরা অভিবাসীদের আটক রাখাসহ বিভিন্ন অপরাধে যুক্ত বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দীর্ঘ কয়েক মাসের তদন্ত শেষে সমাপ্তির পথে অপারেশন পোল্টসা। স্প্যানিশ সিভিল গার্ডের নেতৃত্বে, ফরাসি পুলিশ এবং ইউরোপোল সমর্থিত মিশনের সমন্বয়ে ১১ থেকে ১৫ অক্টোবরের মধ্যে এই অপারেশন পরিচালিত হয়৷ এর মাধ্যমে স্পেনের গুইপুজকোয়া, বিস্কে এবং নাভার প্রদেশ থেকে সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

স্প্যানিশ সিভিল গার্ড এক বিবৃতিতে বলেছে, “গ্রেপ্তারকৃতরা মরক্কো ও মালির নাগরিক। সন্দেহভাজনরা গত দুই মাসে স্পেন থেকে ফ্রান্সে ৬০টি মানব পাচারের ঘটনার সাথে জড়িত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।’’

কর্তৃপক্ষ তাদের বাড়িতে তল্লাশির সময় ২৫টি মোবাইল ফোন, দুইটি ট্যাবলেট পিসি এবং একটি কম্পিউটার জব্দ করেছে।

সিভিল গার্ডের মতে, “গ্রুপটি বরাবরের মতো পাচারের একই উপায় অবলম্বন করেছে। অভিযুক্ত চোরাচালানকারীরা প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে ট্রানজিট পয়েন্টে অভিবাসীদের সংস্পর্শে আসে, যারা অস্থায়ী নৌকায় চড়ে স্পেনের দক্ষিণ হয়ে ইউরোপে প্রবেশ করেছিল। স্প্যানিশ বাস্ক প্রদেশে থেকে যেসব অভিবাসী ফ্রান্সের বায়োন বা বোর্দো শহরে যেতে ইচ্ছুক তাদের সাথে পাচারকারীরা বারবার বৈঠকে মিলিত হয়েছিল৷”

এছাড়া তারা গুইপুজকোয়া প্রদেশে রেড ক্রসের পরিচালিত বিভিন্ন ক্যাম্পে অবস্থানরত অভিবাসীদের পাচারের টার্গেট করেছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।  

প্রতিটি পাচারে একটি গাড়িতে তিন থেকে চারজন অভিবাসীকে পরিবহণ করত নেটওয়ার্কটি। স্থানীয় সংবাদপত্র সুদ-ওয়েস্ট নিশ্চিত করেছে, ‘‘স্পেন থেকে ফ্রান্সের বায়োন শহরে পৌঁছে দিতে তারা মাথাপিছু ১৫০ থেকে ২০০ ইউরো এবং বোর্দো শহরে যেতে ২৫০ থেকে ৩০০ ইউরো দাবি করত।’’ 

‘সাধারন মানুষের চেয়ে পুলিশের সংখ্যা বেশি’


পশ্চিম থেকে পূর্ব স্প্যানিশ সীমান্তটি ফ্রান্সে পৌঁছতে চাওয়া পশ্চিম আফ্রিকা এবং মাগরেব (আলজেরিয়া, টিউনিশিয়া এবং মরোক্কো) অঞ্চল থেকে থেকে আসা অভিবাসীদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ক্রসিং পয়েন্ট।

সেপ্টেম্বরে, আট আলজেরিয়ান পাচারকারীকে হউত গারোন শহর থেকে গ্রেফতার করেছিল ফরাসি পুলিশ। সেবারও স্পেন থেকে গাড়িতে অভিবাসীদের ফ্রান্সে নিয়ে আসা হয়েছিল কিন্তু সেটি ছিল স্পেনের নেরিদা শহর থেকে সরাসরি ফ্রান্সের তুলুজ ট্রেন স্টেশনে। এই রুটে তারা মাথাপিছু ২০০ থেকে ৫০০ ইউরো দাবি করত। 

স্পেন-ফ্রান্স সীমান্তের বাস্ক অঞ্চল উত্তর ইউরোপে অভিবাসী রুটের একটি গুরুত্বপূর্ণ ট্রানজিট এলাকা। এই অঞ্চলটিকে দুই ভাগ করে ফরাসি এবং স্পেন কর্তৃপক্ষ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করে থাকে। 

এই ফ্রাঙ্কো-স্প্যানিশ সীমান্তে গত জুন মাসে একজন পথচারী ইনফোমাইগ্রেন্টসকে বলেছিলেন, ‘‘এখানে ভ্রমণকারীদের চেয়ে পুলিশের সংখ্যাই বেশি।’’ 

এই ফরাসি বলেন, “সেইন্ট জ্যাক ব্রিজটি স্প্যানিশ শহর ইরুন এবং ফরাসি শহর হেনদায়েকে পৃথক করেছে। এই অঞ্চল পার হওয়া অভিবাসীদের জন্য খুব কঠিন।"



এমএইউ/এফএস


 

অন্যান্য প্রতিবেদন