মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর, চিওস দ্বীপে চার অভিবাসী শিশুর মৃত্যু হয়েছে। ছবিঃ Twitter @nmitarakis
মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর, চিওস দ্বীপে চার অভিবাসী শিশুর মৃত্যু হয়েছে। ছবিঃ Twitter @nmitarakis

তুরস্ক উপকূলে অবস্থিত গ্রিক দ্বীপ চিওসের কাছে এজিয়ান সাগরে মঙ্গলবার একটি নৌকা বিধ্বস্ত হয়েছে। উদ্ধার অভিযান সত্ত্বেও চার শিশু মারা গেছে এবং ৭ জন মহিলা ও এক শিশু সহ ২২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

এজিয়ান সাগরে মঙ্গলবার একটি অভিবাসী নৌকা ডুবিতে চার শিশু মৃত্যুর ঘটনায় তুরস্ককে দায়ী করেছে গ্রিস।

তুরস্ক উপকূলের নিকটে চিওস দ্বীপের কাছেই নৌকাটি ডুবে যায়। নৌকাডুবির ঘটনায় উদ্ধার করা হয়েছে বাইশ জনকে।

গ্রিক অভিবাসন মন্ত্রী নোটিস মিতারাছি টুইটারে দুঃখ প্রকাশ করে বলেছেন, "এটি দুঃখজনক কিন্তু গ্রিক কোস্ট গার্ডের সমস্ত প্রচেষ্টা সত্ত্বেও, ৩ থেকে ১৪ বছর বয়সি চার শিশুর মৃত্যু ঘটেছে। ২২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে এবং তাদের মূল ভূখণ্ডে পৌঁছানোর জন্য যাবতীয় দায়িত্ব নেওয়া হয়েছে।" 

তিনি আরও যোগ করেন, "মূল উৎস থেকে অপরাধী চক্রের দ্বারা [অভিবাসীদের] শোষণ রোধ করতে তুর্কি কর্তৃপক্ষকে আরও বেশি পদক্ষেপ নিতে হবে। এই সীমান্ত পারাপারগুলো আর ঘটতে দেয়া যায় না।” 




তিনি মানুষের জীবনকে হুমকিতে ফেলা "অসাধু" পাচারকারীদেরও নিন্দা করেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উঠে আসা ছবি এবং ভিডিওতে দেখা গেছে উদ্ধার অভিযানের সময় সমুদ্র বেশ রুক্ষ ছিল। এজিয়ান সাগরের এই এলাকায় ন্যাটোর একটি জাহাজ, দুটি হেলিকপ্টার এবং আরও কয়েকটি নৌযানের সহায়তায় গ্রিক কোস্টগার্ড এই উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করেছে। 

উদ্ধারকৃত ২২ জনের মধ্যে ১৪ জন পুরুষ, ৭ জন মহিলা এবং একটি শিশু রয়েছে।

তুরস্ক উপকূল থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত গ্রিক দ্বীপ চিওস। ছবিঃ গুগল ম্যাপ
তুরস্ক উপকূল থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত গ্রিক দ্বীপ চিওস। ছবিঃ গুগল ম্যাপ


জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর এর বক্তব্য অনুসারে, প্রতিবেশী তুরস্ক থেকে এই বছর ২,৫০০ এরও বেশি লোক এজিয়ান সাগর পাড়ি দিয়েছে, যেটি ২০২০ সালে ছিল ৯,৭০০ জন। ২০২০ সালে ১০০ জনেরও বেশি মানুষ এজিয়ান সাগরে মৃত্যু ঘটেছে বা নিখোঁজ হয়েছে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি। 



এমএইউ/এআই


 

অন্যান্য প্রতিবেদন