পোল্যান্ড-বেলারুশ সীমান্তের বর্তমান পরিস্থিতি | ছবি: পিকচার অ্যালায়েন্স/এপি
পোল্যান্ড-বেলারুশ সীমান্তের বর্তমান পরিস্থিতি | ছবি: পিকচার অ্যালায়েন্স/এপি

বেলারুশ থেকে কয়েক হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশীদের দল সোমবার জোর করে পোল্যান্ডে ঢুকতে চেষ্টা করে। এরপর থেকে উত্তপ্ত পোল্যান্ড-বেলারুশ সীমান্তে পরিস্থিতি।

বেলারুশ থেকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদস্য রাষ্ট্র পোল্যান্ডের দিকে ধেয়ে আসে তিন থেকে চার হাজার অভিবাসনপ্রত্যাশীদের দল, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই ইরাক থেকে আসা কুর্দি জনতা।

পোলিশ কর্তৃপক্ষের মতে, এই পুরো ঘটনার নিয়ন্ত্রণের রাশ বেলারুশ রেখেছে নিজের হাতে, এবং এই ধরনের অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করে ইইউ'র ওপর আঘাত আনতে চায় বেলারুশ বলে মত তাদের।

পোলিশ প্রধানমন্ত্রী মাতেউজ মোরাউইকি মঙ্গলবার বলেন, "পোলিশ সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া আমাদের জাতীয় প্রয়োজন। কিন্তু আজকের অবস্থায় আমাদের দেশ ছাড়াও গোটা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা প্রশ্নের মুখে। কিন্তু আমরা ভয় পাব না। আমরা ইউরোপকে নিরাপদ রাখব ইইউ ও ন্যাটোর সাথে মিলে।"

সীমান্তের হালনাগাদ পরিস্থিতি তুলে ধরা কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যায় কীভাবে বেলারুশের সেনা সদস্যরা অভিবাসনপ্রত্যাশীদের সীমান্তের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। বেলারুশ-সংলগ্ন অঞ্চলে সাংবাদিকদের মুক্তভাবে কাজ করার অনুমতি নেই বলে এইসব ভিডিওর সত্যতা পুরোপুরি যাচাই করা এখনও সম্ভব হয়নি। তবে, পোলিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তরফে প্রকাশিত একটি ভিডিওতে দেখা যায় কীভাবে অভিবাসনপ্রত্যাশীরা কাঁটাতারের বেড়া কেটে, কোদাল দিয়ে মাটি কুপিয়ে সীমান্ত পেরোনোর পথ তৈরি করছেন।

আন্তর্জাতিক মহলের প্রতিক্রিয়া

জার্মান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হর্স্ট জেহোফার এই 'সংকটের সময়ে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নকে' একজোট হয়ে লড়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

জার্মান সংবাদপত্র বিল্ডকে মঙ্গলবার তিনি বলেন, "সীমান্ত নিরাপদ করে তুলতে পোল্যান্ডের পাশে আমাদের দাঁড়াতেই হবে। এটা আসলে ইউরোপিয়ান কমিশনের কাজ। আমি তাদের অবিলম্বে আহ্বান জানাচ্ছি।"

ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডেয়ার লায়েন ইইউ সদস্য রাষ্ট্রগুলিকে একজোট হয়ে 'বেলারুশের সৃষ্টি করা সংকট মোকাবিলায়' দেশটির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে বলেন। একটি বিবৃতিতে তিনি বলেন, "বেলারুশের কর্তৃপক্ষকে বুঝতে হবে যে এইভাবে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের হাতিয়ার করে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নকে চাপে ফেলা শেষ পর্যন্ত তাদের কাজে আসবে না। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ব্যবহার কোনো মতেই মেনে নেওয়া যায় না।"

এছাড়া, বেলারুশ কীভাবে তৃতীয় পক্ষের বিমান সংস্থাগুলিকে ব্যবহার করে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বেলারুশে নিয়ে এসেছে, তা-ও খতিয়ে দেখবে ইইউ বলে জানান তিনি।

ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্টের সম্পূর্ণ বিবৃতিটি পড়ুন এখানে

বেলারুশের নিন্দা করে সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন মার্কিন মুখপাত্র নেড প্রাইসও।

বেলারুশ কী বলছে?

উত্তপ্ত পরিস্থিতির দায় বেলারুশ চাপাচ্ছে পোলিশ কর্তৃপক্ষের ওপর। 'নিরাপত্তা চাইতে আসা মানুষদের ওপর কাঁদুনে গ্যাস ব্যবহার করছে পোল্যান্ড', যার প্রত্যুত্তরে 'কোনো কোনো শরণার্থীরা পোলিশ সীমান্ত ভাঙতে শুরু করেন', জানাচ্ছে বেলারুশের সরকারি বার্তা সংস্থা বেলটা।

এর আগে, বেলারুশ কর্তৃপক্ষ বলে যে আন্তর্জাতিক পরিবহন পথ খোলা রাখতে তারা সচেষ্ট হলেও চলমান অভিবাসী সংকটের জন্য দায়ী পোল্যান্ড।

বেলারুশের মতে, 'অভিবাসনপ্রত্যাশীরা এমন পদক্ষেপ নিয়েছেন পোল্যান্ডের অমানবিক আচরণের কারণে'।

এসএস/কেএম (এএফপি)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন