হোহোনিকিতে মুসলমানদের কবরস্থানে আহমেদ আল হাসানকে দাফন করা হয় / ছবি: রয়টার্স
হোহোনিকিতে মুসলমানদের কবরস্থানে আহমেদ আল হাসানকে দাফন করা হয় / ছবি: রয়টার্স

বেলারুশ থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) প্রবেশের চেষ্টাকালে সীমান্তে নিহত এক সিরীয় তরুণের মৃতদেহ পোল্যান্ডের একটি মুসলিম কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে৷ গত মাসে সীমান্তে ডুবে মৃত্যু হয়েছিল তার৷

পোল্যান্ডের পূর্বাঞ্চলের গ্রাম বোহোনিকির কাঠের মসজিদের সামনে অল্প কিছু মানুষ অভিবাসী তরুণের জানাজায় অংশ নেন৷ গত গ্রীষ্মে ইইউ’র বহিঃসীমান্ত হিসেবে বিবেচিত পোল্যান্ড-বেলারুশ সীমান্তে অভিবাসী সংকট শুরুর পর এই প্রথম দেশটিতে সীমান্তে মৃত কোনো অভিবাসীকে এভাবে দাফন করা হলো৷

১৯ বছর বয়সি আহমেদ আল হাসানের জানাজা ও দাফন তার পরিবারের সদস্যরা অনলাইনে সরাসরি দেখতে পেরেছেন৷ বোহোনিকিতে বসবাসরত এক সিরীয় চিকিৎসক লাইভস্ট্রিমের ব্যবস্থা করেন৷ 

ইইউ বহিঃসীমান্তে প্রাণ হারানো ১১ অভিবাসীর একজন আল হাসান
ইইউ বহিঃসীমান্তে প্রাণ হারানো ১১ অভিবাসীর একজন আল হাসান


স্থানীয় মুসলমান নেতা মাচিস চেসনভিস বলেন, ‘‘এটা একটা মানবিক ব্যাপার৷ তাই আমরা তাকে যথাযথভাবে দাফন করেছি৷ তাদের প্রতি সহানুভূতি থাকাই স্বাভাবিক৷’’

‘‘তিনি একজন মুসলমান ছিলেন, বয়সেও তরুণ৷ আমাদের সাহায্য করা দরকার ছিল,’’ যোগ করেন বোহোনিকি মুসলমান সম্প্রদায়ের এই চেয়ারম্যান৷ 

ইইউ বহিঃসীমান্তে প্রাণ হারানো ১১ অভিবাসীর একজন আল হাসান, যাকে তার মাতৃভূমি সিরিয়ার হোমস শহর থেকে দুই হাজার ৩০০ কিলোমিটার দূরে দাফন করা হলো৷

চেসনভিস জানান বেলারুশ সীমান্তের বাগ নদী পাড়ি দিতে গিয়ে ডুবে মারা যান এই সিরীয় তরুণ৷ তার সহযাত্রী আরেক অভিবাসী, যিনি নদীটি পাড়ি দিতে সক্ষম হয়েছিলেন, পোলিশ কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন যে বেলারুশের সীমান্তরক্ষীরা তাদেরকে নদীতে ফেলে দিয়েছিল, এমনকি তারা সাঁতার না জানার পরও৷ 

জানাজা লাইভস্ট্রিম করা সিরীয় চিকিৎসক কাসেম শেডি জানান, আল হাসান জর্ডানের রিফিউজি সেন্টারে শুরু করা উচ্চশিক্ষা শেষ করতে চেয়েছিলেন৷  

‘‘তিনি সুন্দর ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখা প্রত্যেক তরুণের মতোই একই জিনিস চেয়েছিলেন৷ কিন্তু তারক্ষেত্রে সেই স্বপ্ন সফল হয়নি৷ বরং মৃত্যু তাকে খুব দ্রুত কেড়ে নিয়েছে,’’ বলেন শেডি৷ 

মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধবিধ্বস্ত ও দরিদ্র দেশগুলো থেকে হাজার হাজার অভিবাসী সম্প্রতি বেলারুশ হয়ে ইইউতে প্রবেশের চেষ্টা করে৷ প্রচণ্ড ঠাণ্ডার মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ পথে তাদের এই যাত্রায় বাধ সাধছে পোল্যান্ডের সীমান্তরক্ষীরা৷ দেশটিতে জরুরী অবস্থা জারি করে সীমান্তে কাটাতারের বেড়া তুলছে পোলিশ কর্তৃপক্ষ৷ 

এই প্রথম দেশটিতে সীমান্তে মৃত কোনো অভিবাসীকে এভাবে দাফন করা হলো
এই প্রথম দেশটিতে সীমান্তে মৃত কোনো অভিবাসীকে এভাবে দাফন করা হলো

ইইউ বেলারুশের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলে মধ্যপ্রাচ্যের অভিবাসীদের জন্য এই রাস্তা খুলে দেয় মিনস্ক৷ ফলে সীমান্তে সংকটের সৃষ্টি হয়৷ 

বোহোনিকির বাসিন্দারা অবশ্য শুধু অভিবাসীদেরই নয়, সেখানে অবস্থানরত পোলিশ সেনাদেরও সহায়তা করছেন৷ তাদের জন্য প্রতিদিন নতুন সাবানসহ নানাকিছুর ব্যবস্থা করছেন তারা৷ 

‘‘আমরা উভয়পক্ষকেই সহায়তা করছি৷ আমাদের কাছে এক্ষেত্রে বিশ্বাস, গায়ের রং বা জাতীয়তা গুরুত্বপূর্ণ নয়,’’ বলেন মাচিস চেসনভিস৷ 

‘‘তারা যদি পোল্যান্ডের ভূখণ্ডে থাকেন, তাহলে আমরা তাদেরকে সহায়তা করবো,’’ যোগ করেন তিনি৷ 

এআই/এসএস (এএফপি)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন