পোল্যান্ড-বেলারুশ সীমান্তের কাছে একটি পোলিশ শহরের বাড়িতে সবুজ বাতি জ্বলতে দেখা যাচ্ছে | ছবি: ইপিএ/মার্টিন ডিভিসেক
পোল্যান্ড-বেলারুশ সীমান্তের কাছে একটি পোলিশ শহরের বাড়িতে সবুজ বাতি জ্বলতে দেখা যাচ্ছে | ছবি: ইপিএ/মার্টিন ডিভিসেক

পোল্যান্ড এবং বেলারুশের মধ্যকার সীমান্তে আটকেপড়া অভিবাসীদের নিয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ‘সবুজ লণ্ঠন’ প্রচারণা শুরু করেছে আন্তর্জাতিক শিশু অধিকার বিষয়ক সংগঠন ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’৷

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদেরকে সবুজ আলো জ্বালিয়ে সেই ছবিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে ট্যাগ করে অনলাইনে প্রকাশ করার আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি৷ এই প্রচারণার মাধ্যমে ইইউ বহিঃসীমান্তে অভিবাসীদের দুর্দশার দিকে মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চায় সেভ দ্য চিলড্রেন৷

ইটালিতে সংগঠনটির মহাপরিচালক ডানিয়েলা ফাতারেলা দেশটির একটি পত্রিকায় খোলা চিঠি লিখেছেন৷ ক্যাথলিক দৈনিক আভেনিরে প্রকাশিত চিঠিটিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘‘একটি সদস্য দেশের সহিংস বিরোধিতা এবং ইউরোপের অসাড়তার প্রেক্ষিতে সুশীল সমাজ আবারও আন্তর্জাতিক আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সবার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে৷ সবুজ বাতি জ্বালানোর মাধ্যমে পোল্যান্ডের মানুষ বেলারুশ সীমান্ত পার হতে সক্ষম হওয়া অভিবাসীদের আতিথেয়তা এবং সহায়তা করার ইঙ্গিত দিচ্ছে যা এই বার্তাই দেয় যে ইউরোপ আশা, মানবিকতা, সংহতি প্রকাশে সক্ষম এবং প্রস্তুত৷’’

তিনি মনে করেন যে সবুজ লণ্ঠন শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘‘জনপ্রিয় হয়ে ওঠা কোনো প্রতীকী সংকেত নয়, বরং সেসব মানুষের কাছে নৈকট্য এবং দায়িত্বজ্ঞানের প্রতীক যারা নির্বিকার না থেকে সহৃদয় থাকতে চায়৷’’ 

ফাতারেলা খোলা চিঠিতে লিখেছেন, ‘‘আমরা সুশীল সমাজ এবং অন্যান্য সংগঠনকেও একই প্রতীক ও লড়াইয়ের কথা শেয়ার করতে আহ্বান জানাই যাতে এটা প্রমাণিত হয় যে আমরা অন্যদিকে তাকিয়ে নেই৷ আমরা এই মানুষদের সহায়তা করতে ইউরোপের প্রতি আহ্বান জানাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে থাকা আমাদের চ্যানেলগুলোতে সবুজ আলো জ্বালিয়ে রাখবো৷’’

‘‘রাজনৈতিক স্বার্থ রক্ষার বিনিময়ে অভিবাসী, বিশেষ করে শিশুদের সুরক্ষা এবং আশ্রয় দেয়ার বিষয়টি ত্যাগ করা কখনোই উচিত হবে না৷ আমরা (ইংরেজিতে) #গ্রিনলাইট এবং #লানটের্নভারডি হ্যাশট্যাগ ও টুইটারে (ইংরেজিতে) @ইইউকাউন্সিল @ইইউ_কমিশন একাউন্টগুলোকে ট্যাগ করে সবুজ আলো জ্বালাচ্ছি,’’ বলেন সেভ দ্য চিলড্রেন ইটালির মহাপরিচালক ডানিয়েলা ফাতারেলা৷

এআই/কেএম (আনসা)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন