১৮ অক্টোববর ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধারের পর অভিবাসীদের একটি দল৷ ছবি: আনসা
১৮ অক্টোববর ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধারের পর অভিবাসীদের একটি দল৷ ছবি: আনসা

চলতি বছরের প্রথম এগারো মাসে পৌনে দুই লাখ মানুষ ‘অবৈধভাবে’ ইউরোপ প্রবেশ করেছে বলে শনাক্ত করেছে ইউরোপের বহিঃসীমান্ত রক্ষাকারী সংস্থা ফ্রনটেক্স৷ এই সংখ্যা ২০২০ সালের একই সময়ের চেয়ে ৬০ শতাংশ বেশি৷

২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ‘অবৈধভাবে’ এক লাখ ৮৪ হাজার ১৮০ টি সীমান্ত পারপারের ঘটনা শনাক্ত করেছে ফ্রনটেক্স৷ ১৫ ডিসেম্বর এই পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে তারা৷ এই হিসাব ২০১৯ সালের একই সময়ের চেয়ে ৪৫ শতাংশ আর গত বছরের চেয়ে ৬০ শতাংশ বেশি৷

ফ্রনটেক্সের হিসাবে চলতি বছরের নভেম্বরে ২২ হাজার ৪৫০ জন অভিবাসী অনিয়মিত উপায়ে ইউরোপে প্রবেশ করেন৷ ২০১৫ সালের পর নভেম্বরে এত বেশি সংখ্যক অভিবাসী আর আসেনি৷  

এ বছর বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশী ইউরোপে প্রবেশ করেছে পূর্ব সীমান্ত, পশ্চিম বলকান ও মধ্য ভূমধ্যসাগর হয়ে৷  

পূর্ব সীমান্ত

২০২১ সালে প্রথম এগারো মাসে ইউরোপের পূর্ব সীমান্ত দিয়ে আট হাজার অবৈধ পারাপারের ঘটনা ঘটেছে৷ ২০২০ সালের তুলনায় এই সংখ্যা ১৩গুণ আর ২০১৯ এর চেয়ে ১২গুণ বেশি৷ সবচেয়ে বেশি মানুষ এসেছেন বেলারুশ সীমান্ত পেরিয়ে৷  

এই পথে আসাদের বড় একটি অংশ ছিল ইরাক, আফগানিস্তান ও সিরিয়ার নাগরিক৷ 

মধ্য ভূমধ্যসাগর

এই রুটে আফ্রিকা মহাদেশ থেকে লিবিয়া ও টিউনিসিয়া হয়ে ইউরোপে ইটালি বা মাল্টাতে পৌঁছান অভিবাসনপ্রত্যাশীরা৷ ফ্রন্টেক্সের হিসাবে এই পথে এবার সবচেয়ে বেশি অভিবাসী ইউরোপের পথে পাড়ি জমিয়েছেন৷ জানুয়ারি থেকে নভেম্বরে ৬৪ হাজার মানুষ এসেছেন, যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৮৯ শতাংশ বেশি৷ ২০১৯ সালের তুলনায় এই বৃদ্ধি ৩৮০ শতাংশ৷ 

শুধু নভেম্বরেই আট হাজার ৩৩৭ জন পৌঁছেছেন এই পথ পেরিয়ে, যা ২০২০ সালের একই মাসের চেয়ে ৫৫ শতাংশ বেশি৷ 

মধ্য ভূমধ্যসাগর হয়ে আসা অভিবাসীদের মধ্যে টিউনিসিয়ান, মিশরীয় ও বাংলাদেশিরা সবার উপরে রয়েছেন৷ এর মধ্যে শুধু নভেম্বরে শীর্ষে ছিল মিশরীয় নাগরিকরা৷ 

পড়ুন: ইটালির ক্যালাব্রিয়া উপকূল: ভূমধ্যসাগরে নতুন অভিবাসন রুট

পশ্চিম বলকান

পশ্চিম বলকান হয়ে আসা ৫৩ হাজার ৩১০ অবৈধ পারাপার চিহ্নিত করেছে ইইউ৷ এটি ২০২০ সালের চেয়ে ১৩৮ শতাংশ বেশি৷ ইউরোপে আগতদের সংখ্যার দিক থেকে এই পথটির অবস্থান ছিল দ্বিতীয়৷ 

পশ্চিম বলকান দেশগুলো সীমান্ত দিয়ে আসা অভিবাসী ও শরণার্থীদের মধ্যে উপরে রয়েছেন সিরিয়া, আফগানিস্তান ও মরক্কোর নাগরিক৷ 

পশ্চিম ভূমধ্যসাগর

২০২১ সালে ১৭ হাজার ১১৪ জন অনিয়মিত উপায়ে সীমান্ত অতিক্রম করেছেন পশ্চিম ভূমধ্যসাগর হয়ে৷ এই রুটে মূল গন্তব্য স্পেন৷ এই সংখ্যা ২০২০ সালের চেয়ে ছয় শতাংশ বেশি, তবে ২০১৯ এর চেয়ে ২৪ শতাংশ কম৷ আগতদের দুই তৃতীয়াংশই ছিলেন আলজেরিয়ান৷ অন্যদিকে প্রায় এক তৃতীয়াংশই ছিল মরোক্কান৷ 

পূর্ব ভূমধ্যসাগর

সাম্প্রতিক সময়ে বহিঃসীমান্তে দেয়াল তুলেছে গ্রিস৷ পূর্ব ভূমধ্যসাগর হয়ে তাই গ্রিসে আসার প্রবণতাও কিছুটা কমেছে৷ ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালের ১১ মাসে এই পথে আসা মানুষদের সংখ্যা তিন শতাংশ কমেছে৷ আর ২০১৯ সালের চেয়ে কমেছে ৭৫ শতাংশ৷ 

এই পথে সবচেয়ে বেশি অভিবাসী এসেছেন সিরিয়া, তুরস্ক ও কঙ্গো থেকে৷ 

আটলান্টিক থেকে ক্যানারি

জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত পশ্চিম আফ্রিকান রুটে ২০ হাজার ১৮৩ অনিয়মিত অভিবাসী পৌঁছেছেন৷ এই সংখ্যা তার আগের বছরের কাছাকাছি, তবে ২০১৯ এর চেয়ে নয়শো শতাংশ বেশি৷ এই পথে উত্তর পশ্চিম আফ্রিকা থেকে স্পেনিশ ক্যানারি দ্বীপে আসেন অভিবাসীরা৷ আগত বেশিরভাগ অভিবাসীই সাব-সাহারা আফ্রিকার দেশগুলোর৷ 



এফএস/এআই (আনসা)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন