(ফাইল ছবি) তুরস্ক থেকে এজিয়ান সাগর পাড়ি দিয়ে গ্রিক দ্বীপ লেসবস দ্বীপে পৌঁছান অনেক অভিবাসনপ্রত্যাশী৷ ছবি: এএফপি
(ফাইল ছবি) তুরস্ক থেকে এজিয়ান সাগর পাড়ি দিয়ে গ্রিক দ্বীপ লেসবস দ্বীপে পৌঁছান অনেক অভিবাসনপ্রত্যাশী৷ ছবি: এএফপি

গ্রিসের ফলেগ্রান্ড্রোস দ্বীপের কাছে অভিবাসীদের একটি নৌকাডুবিতে নিখোঁজদের সন্ধানে অভিযান পরিচালনা করছে গ্রিক কর্তৃপক্ষ৷ এ পর্যন্ত ১২ জনকে উদ্ধারে সক্ষম হয়েছে তারা৷

গ্রিসের রাজধানী এথেন্স থেকে ১৮০ কিলোমিটার দূরে অভিবাসীদের বহনকারী একটি ডিঙি নৌকা মঙ্গলবার রাতে সমুদ্রে ডু্বে যায়৷ খবর পেয়েই সম্মিলিত অভিযান শরু করে কর্তৃপক্ষ৷ শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তারা একজনের মরদেহ ও জীবিত ১২ জনকে উদ্ধার করেছে৷ এরমধ্যে শিশুও রয়েছে৷ উদ্ধারকৃতদের সাতজন ইরাকি, তিনজন সিরিয়ান ও দুইজন মিশরীয় বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি৷

‘বেঁচে যাওয়ারা একটি ডিঙির উপরে ভেসে থাকতে সক্ষম হন, যেটি নৌকার সঙ্গে বাধা ছিল৷ এদের মাত্র দুইজনের কাছে লাইফ জ্যাকেট ছিল,’’ রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ইআরটিকে বলেন উপকূলরক্ষী বাহিনীর মুখপাত্র নিকোস কোকালাস৷ তবে নৌকাটিতে মোট কতজন যাত্রী ছিলেন তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি৷ উদ্ধারকৃতদের কেউ কেউ বলেছেন ৩২ জন ছিলেন৷ কারো মতে এই সংখ্যা অর্ধশত৷ নিকোস বলেন, ‘‘আমরা সবসময় সবচেয়ে খারাপটা ভেবে রাখি, সেদিক থেকে বলতে হবে নৌকায় ৫০ জন মানুষ ছিলেন৷’’

উপকূলরক্ষীদের চারটি নৌযান, নৌ বাহিনীর দুইটি জাহাজ, বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার, সামরিক বিমান, বেসরকারি মালিকানাধীন তিনটি নৌযান এই অভিযানে অংশ নিয়েছে বলে জানিয়েছে উপকূলরক্ষী বাহিনী৷ 

২০১৫ সালে প্রায় ১০ লাখ মানুষ তুরস্ক হয়ে গ্রিস সীমান্ত দিয়ে ইউরোপ প্রবেশ করেন৷ এদের বড় অংশই ছিল সিরিয়ার নাগরিক৷ চলতি বছর বিভিন্ন দেশের প্রায় সাড়ে আট হাজার আশ্রয়প্রার্থী দেশটিতে পৌঁছান৷ আর সমুদ্র পাড়ি দিতে গিয়ে এজিয়ান সাগরে প্রাণ হারিয়েছেন আরো অনেকে৷ 

এফএস/কেএম (এএফপি, এপি)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন