লিবিয়ার খোমস উপকূল থেকে শনিবার ২৭জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়৷ ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশের পথে তারা নৌকাডুবিতে নিহত হন বলে জানা গেছে৷ ছবি: হামযা আল আহমার/আনাদোলু এজেন্সি
লিবিয়ার খোমস উপকূল থেকে শনিবার ২৭জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়৷ ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশের পথে তারা নৌকাডুবিতে নিহত হন বলে জানা গেছে৷ ছবি: হামযা আল আহমার/আনাদোলু এজেন্সি

লিবিয়ার রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সদস্যরা দেশটির সমুদ্র উপকূল থেকে এক শিশু ও দুইজন নারীসহ মোট ২৭জন অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে৷

শনিবার দেশটির উপকূলীয় শহর খোমস-এর সমুদ্রতীর থেকে তাদের উদ্ধার করে৷ 

তবে ঠিক কখন এবং কোথায় নৌকাডুবির ঘটনায় তারা নিহত হয়েছেন সে বিষয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি৷ 

তার আগে বৃহস্পতিবার এজিয়ান সাগরের গ্রিস উপকূলে নৌকাডুবির ঘটনায় অন্তত ৩০জন অভিবাসনপ্রত্যাশী নিহত হয়েছেন৷ 

শুক্রবার পর্যন্ত গ্রিসের উপকূলরক্ষীরা ১৬জনের মৃতদেহ উদ্ধার করে৷ সেসময় অন্তত ৮০জন শরণার্থীকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয় হয় বলে জানিয়েছে গ্রিসের উপকুলরক্ষীরা৷   

ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে অভিবাসনপ্রত্যাশীদের ইউরোপে প্রবেশের ঘটনা প্রতিনিয়ত বাড়ছে৷ নৌকায় করে সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে হতাহতের ঘটনাও ঘটছে প্রায় নিয়মিত৷ 

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা আইওএম-এর তথ্য মতে, চলতি বছর এই পথে নৌকাডুবির ঘটনায় অন্তত ১৫শ অভিবাসনপ্রত্যাশী নিহত হয়েছেন৷ 

এদিকে সরকারি ও বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা নিয়োজিত টহলবাহিনী প্রায়ই সমুদ্রে বিপদাপন্ন অবস্থায় অভিবাসনপ্রথ্যাশীদের উদ্ধার করে থাকে৷

ক্রিসমাসের ছুটির সময় গত সপ্তাহান্তে বিভিন্ন অভিযানে জার্মানির বেসরকারি সংস্থার জাহাজ সি-ওয়াচ ৩ ভূমধ্যসাগর থেকে অন্তত ৪৪৬জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে বলে জানিয়েছে৷ 

আরআর/এসিবি (এএফপি, রয়টার্স)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন