হাঙ্গেরি সীমান্তে দায়িত্ব পালনরত একজন সৈন্য। ছবিঃ Picture alliance
হাঙ্গেরি সীমান্তে দায়িত্ব পালনরত একজন সৈন্য। ছবিঃ Picture alliance

অনিয়মিত পথে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে হাঙ্গেরিতে প্রবেশ করতে চাওয়া প্রায় ছয়শ অভিবাসীকে আটকে দিয়েছে দেশটির পুলিশ। এছাড়া মাদক সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে গত সপ্তাহে সীমান্ত থেকে ২১ অভিবাসন প্রত্যাশীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

অনিয়মিত উপায়ে ইউরোপে প্রবেশে অভিবাসন প্রত্যাশীদের কাছে অন্যতম পছন্দের দেশ হাঙ্গেরি। সার্বিয়া ও ক্রোয়েশিয়া থেকে হাঙ্গেরিতে প্রবেশ করে অস্ট্রিয়ার দিকে চলে যেতে চান অভিবাসীরা৷ তবে দেশটির কট্টর ডানপন্থি রাষ্ট্রপতি ভিক্টর অরবানের অভিবাসন বিরোধী নীতির কারণে বেশ কয়েক বছর ধরে অনিয়মিতভাব এই হাঙ্গেরি সীমান্ত পাড়ি দেয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। 

হাঙ্গেরি পুলিশ সোমবার জানিয়েছে, সীমান্তে নিয়মিত কড়াকড়ির অংশ হিসেবে গত তিন দিন ৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ৬ ফেব্রুয়ারি ৫৮৯ জন অনিয়মিত অভিবাসীকে হাঙ্গেরি সীমান্ত থেকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। 

এর আগে ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩০ জানুয়ারি সর্বমোট ১২৯৫ জন অনিয়মিত অভিবাসীকে হাঙ্গেরি সীমান্ত থেকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

অপরদিকে, সীমান্ত থেকে অনিয়মিত অভিবাসীদের ফিরিয়ে দেয়া ছাড়াও মাদক পাচারে জড়িত সন্দেহে গত সপ্তাহে ২১ জন অভিবাসন প্রত্যাশীকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী। 

ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালত, ইউরোপীয় কমিশনসহ বিভিন্ন অধিকার সংগঠনের অসংখ্য নিন্দা সত্ত্বেও হাঙ্গেরি তাদের অভিবাসী বিরোধী নীতি অব্যাহত রেখেছে এবং সীমান্তে অভিবাসীদের অবৈধভাবে পুশব্যাক অব্যাহত রেখেছে।


এমএইউ/এআই (আনাদুলু এজেন্সি)


 


 

অন্যান্য প্রতিবেদন