আটলান্টিক থেকে উদ্ধার হয়ে ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে আসা অভিবাসদের একটি দল। ছবি: রয়টার্স
আটলান্টিক থেকে উদ্ধার হয়ে ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে আসা অভিবাসদের একটি দল। ছবি: রয়টার্স

আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে স্থান সংকুলানের অভাবে স্প্যানের ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে আসা অভিভাবকহীন নাবালকদের অবস্থা শোচনীয়। এমন পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন দায়িত্বপ্রাপ্ত আঞ্চলিক কর্মকর্তারা রাষ্ট্রীয় সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। অন্যথায় নতুন আগতরা ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের রাস্তায় ঘুমাতে বাধ্য হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় অভিবাসন কর্তৃপক্ষ।

ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে নিযুক্ত সরকারের শিশু ও পরিবার সুরক্ষা বিষয়ক দপ্তরের মহাপরিচালক ইরাটেক্স সেরানো বলেন, “আমরা এটা আর নিতে পারছি না। আমি "ক্লান্ত" হয়ে পড়েছি।”

স্প্যানিশ বার্তা সংস্থা সংস্থা এফেকে তিনি ফেব্রুয়ারির শুরুতে বলেছিলেন, দ্বীপপুঞ্জে অবতরণকারী বিদেশি অভিভাবকহীন নাবালকদের যত্ন নেওয়ার জন্য সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে সাহায্য চাওয়া হয়েছে।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে লানজারোট দ্বীপে প্রায় পঞ্চাশ জন নাবালকের আগমনে পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে উঠেছে। ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের অপ্রাপ্তবয়স্কদের অভ্যর্থনা কেন্দ্রগুলি এখন সম্পূর্ণ। নতুনদের জন্য কোন খালি জায়গা নেই। 

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে পশ্চিম আফ্রিকার উপকূল থেকে অস্থায়ী নৌকায় ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে আসা প্রায় ২,৮০০ নাবালক এখান সরকারি আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে অবস্থান করছে। দ্বীপপুঞ্জ সরকারের তত্ত্বাবধানে থাকা এসব নাবালকদের আবাসন, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করা হচ্ছে।

‘আর কোন সক্ষমতা নেই’

ইরাটেক্স সেরানো সতর্ক করে বলেন, “আমি জানি না কোথায় দেখব। আমরা ইতিমধ্যে পুরো রিয়েল এস্টেট সেক্টরের সাথেও কথা বলেছি। কিন্তু তাদের কাছেও কোন আবাসন নেই।”

তিনি জোর দিয়ে বলেন, “আমরা ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের স্থানীয় মেয়রের দপ্তরের কাছেও আবেদন করেছিলাম। যদিও শহর কর্তৃপক্ষ বরাবরের মতো দ্বীপপুঞ্জে অপ্রাপ্তবয়স্কদের স্বাগত জানাতে অস্বীকার করেছেন। তাদের মতে অভিবাসী ও নাবালকদের বিষয়টি বেশ সাংঘর্ষিক। তবে এটি সত্যি নয়। আপনি চাইলেই এসব শিশুদের নিয়ে রাজনীতি করতে পারেন না।”

শোচনীয় অবস্থায় থাকা এলাকাগুলোর মধ্যে লানজারোটের উত্তরে হারিয়া শহরটি অন্যতম। পরিস্থিতি উত্তরনে কর্তৃপক্ষ সহযোগিতা করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে এবং নাবালকদের থাকার জন্য শহরটির কোন ভবন ব্যবহারে আপত্তি জানিয়েছে। যার ফলে এখানে আবাসন অবকাঠামোর অভাব দেখা দিয়েছে। নতুন আগত অপ্রাপ্তবয়স্করা কোথায় যাবে বা স্থানান্তর করা হবে কেউ জানে না ।

ইরাটেক্স সেরানো আশ্বাস দিয়ে জানান, বিদ্যমান কেন্দ্রগুলোর আশেপাশে সেনাবাহিনীর তাঁবু স্থাপন করা ছাড়া আর কোন সমাধান নেই।”

২০১৮ সাল থেকে ক্যানারি রুটে অভিবাসীরা আসা শুরু করলে দ্বীপপুঞ্জের সার্বিক পরিস্থিতি ও সক্ষমতা নিয়ে আগেই সতর্ক করেছিল সরকারের শিশু ও পরিবার সুরক্ষা বিষয়ক দপ্তর। 

অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্য অভ্যর্থনা কাঠামোর স্থান সংকুলান না হওয়ার বর্তমান পরিস্থিতিই বলে দেয় সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সতর্কতা সঠিক ছিল। 

সৈকতে বয়স পরীক্ষা

ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জ সরকারের সামাজিক অধিকার, সমতা, বৈচিত্র্য এবং যুব বিষয়ক কাউন্সিলর নোমি সান্তানার মতে, “দ্বীপে আসা অনেক লোক যখন প্রকৃতপক্ষে প্রাপ্তবয়স্ক হয়েও নিজেকে নাবালক বলে ঘোষণা করে তখন সমস্যাটি আরও প্রকট হয়।”

তিনি আরও যোগ করেন, “তাদের বয়স যাচাই এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক স্বীকৃত হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় কার্যাবলি শেষ করতে বেশ কয়েক সপ্তাহ সময় লাগে। যখন এসব ফাইল প্রক্রিয়াকরণ বা বিবেচনাধীন থাকে তখন তাদের সবাইকে নাবালকদের জন্য নির্ধারিত কাঠামোতে রাখতে হয়।অনেক প্রাপ্তবয়স্করা এইভাবে নাবালকদের কেন্দ্রগুলিতে স্থান নেয়। অথচ তাদের আশ্রয়প্রার্থীদের জন্য নির্ধারিত বাসস্থানে থাকার কথা।”

অভ্যর্থনা নেটওয়ার্কের উপর সৃষ্ট চাপ কমাতে, ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জ সরকার স্প্যানিশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে’উপকূলের পাদদেশে’ শিশু সুরক্ষায় নিবেদিত কর্মীদের নিযুক্ত করার অনুরোধ জানিয়েছে। যাতে করে অভিবাসীদের দ্বীপে পৌঁছানোর সাথে সাথে তাদের বয়স মূল্যায়ন করা সম্ভব হয়। 

করোনা ভাইরাস মহামারীর কারণে স্প্যানিশ সরকার প্রাথমিকভাবে এই বিকল্পটি প্রত্যাখ্যান করেছিল। কিন্তু প্রবল বিতর্কের মুখে সরকারি প্রতিনিধি আনসেলমো পেস্তানা অবশেষে ফেব্রুয়ারির শুরুতে ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের সৈকতগুলোতে শিশু সুরক্ষায় দক্ষ সামরিক কর্মীদের মোতায়েনের ঘোষণা দেন। 

সৈন্যরা অভিবাসীদের বয়স মূল্যায়নের জন্য পরীক্ষা চালাবে, যা নাবালকদের জন্য নির্ধারিত কেন্দ্রগুলিতে সৃষ্ট হওয়া প্রচুর চাপ কমিয়ে আনবে।



এমএইউ/আরআর


 

অন্যান্য প্রতিবেদন