১২ ও ১৩ ফেব্রুয়ারি পরিচালিত উদ্ধার অভিযানে উদ্ধারকৃতদের সমুদ্র থেকে ওশান ভাইকিং জাহাজে তোলা হচ্ছে। ছবি: Claire Juchat/ SOS Méditerranée
১২ ও ১৩ ফেব্রুয়ারি পরিচালিত উদ্ধার অভিযানে উদ্ধারকৃতদের সমুদ্র থেকে ওশান ভাইকিং জাহাজে তোলা হচ্ছে। ছবি: Claire Juchat/ SOS Méditerranée

ভূমধ্যসাগরে সক্রিয় উদ্ধারকারী জাহাজ ওশান ভাইকিং শনিবার বিকেল থেকে রবিবার সকালের মধ্যে চারটি উদ্ধার অভিযানে ৫১ জন অপ্রাপ্তবয়স্কসহ ২২৮ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে।

ভূমধ্যসাগরের মাল্টা উপকূলে ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ে চারটি উদ্ধার সফল উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করেছে ফ্রান্সের মার্সেই ভিত্তিক এনজিও ‘এসওএস মেডিটারেনে’।

১২ ফেব্রুয়ারি শনিবার বিকেল থেকে ১৩ ফেব্রুয়ারি রবিবার সকালের মধ্যে চারটি নৌকায় থাকা ২২৮ জনকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে এনজিওটির উদ্ধার জাহাজ ওশান ভাইকিং৷ উদ্ধারকৃত মধ্যে ৪৯ জন অভিভাবকহীন নাবালক এবং ২ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক তাদের পরিবারের সদস্যদের সাথে ছিলেন। 

এসওএস মেডিটারেনে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “একটি খবরে ভিত্তিতে শনিবার বিকেলে মাল্টিজ অনুসন্ধান ও উদ্ধার অঞ্চলে (এসএআর জোন) প্রথম অভিযানটি পরিচালনা করা হয়েছিল। সেখান থেকে একটি যাত্রীবোঝাই কাঠের নৌকায় থাকা ৯৩ জন ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়েছিল।”



পরবর্তীতে লিবিয়ার অনুসন্ধান ও উদ্ধার অঞ্চল থেকে শনিবার থেকে রবিবার রাতের মধ্যে অন্য একটি নৌকায় থাকা একটি শিশুসহ ৮৮ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করা হয়। আগের নৌকাটির মতো এটিও যাত্রী বোঝাই ছিল। 

রবিবার সকালে, মাল্টা উপকূল থেকে ওশান ভাইকিং, ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অফ রেড ক্রস এবং রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির যৌথ অভিযানে একটি নতুন কাঠের নৌকা থাকা ২২ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করা হয়। 



এসওএস মেডিটারেনে পরিচালিত সর্বশেষ অভিযানটি পরিয়াচলিত হয় রবিবার সকালে। আবারও মাল্টা উপকূলের নিকটে আন্তর্জাতিক জলসীমায় বিপদগ্রস্থ একটি নৌকা থেকে ২৫ জন লোককে ওশান ভাইকিংয়ের সহায়তায় তীরে নিয়ে আসা হয়। 

সমুদ্রে নৌকার উপস্থিতির তথ্য দিয়ে ওশান ভাইকিংকে সহায়তা করে বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী বিমান কোলিব্রি-২। এই এনজিও স্বেচ্ছাসেবী বিমানটি আকাশ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে উদ্ধার অভিযানে সহায়তা করে।


এমএইউ/আরআর







 

অন্যান্য প্রতিবেদন