জার্মানির ব্রান্ডেনবুর্গে আগত আফগানদের একটি দল৷ ছবি: প্যাট্রিক প্লিউল/ডিপিএ-পিকচার-অ্যালায়েন্স
জার্মানির ব্রান্ডেনবুর্গে আগত আফগানদের একটি দল৷ ছবি: প্যাট্রিক প্লিউল/ডিপিএ-পিকচার-অ্যালায়েন্স

তালেবান ক্ষমতায় আসার পর হাজারো আফগান দেশ ছেড়ে জার্মানি, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশে আশ্রয় নিয়েছিলেন৷ জার্মানিতে পৌঁছানোর আগেই বেশ কয়েকজন আফগানের মৃত্যু হয়েছিল, এমনটাই জানাল সরকার৷ জার্মান বাহিনীতে কাজ করতেন ওই আফগানেরা৷ তালেবান ক্ষমতায় আসার পর সেই ব্যক্তি এবং তাদের পরিবারকে নিরাপদে জার্মানিতে ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ৷ কিন্তু বাস্তবে কী হলো?

আফগানিস্তানের বিভিন্ন প্রদেশে জার্মানির বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চাকুরিজীবী হিসেবে কর্মরত ছিলেন কেউ৷ কেউ ছিলেন সাব-কন্ট্রাকটর আবার কেউ কেউ সরাসরি জার্মান সরকারের চাকুরিতে নিযুক্ত ছিলেন৷ এমন বেশ কয়েকজন আফগান নাগরিকের মৃত্যুর খবর স্বীকার করে নিল জার্মান সরকার৷

সোমবার অর্থাৎ ৪ এপ্রিল পার্লামেন্টে অতি বামপন্থি দল ডি লিঙ্কের নেত্রী ক্লারা ব্যুনগারের প্রশ্নের উত্তরে এই বিবৃতি দেয় সরকার৷ তিনি জানতে চেয়েছিলেন জার্মানিতে আশ্রয়ের জন্য অপেক্ষা করছেন হাজারো আফগান৷এই নিয়ে সরকারের পরিকল্পনা কী? তখন সরকারের তরফে বলা হয়, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে প্রায় ৩০ হাজার জনের জার্মানিতে আসা নিশ্চিত করা হয়েছে৷ তবে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ১৪ হাজার জন জার্মানিতে প্রবেশ করতে পেরেছেন৷ এরপর বিবৃতি দিয়ে মৃত্যুর কথা জানায় সরকার৷

জার্মান পত্রিকা স্পিগেলের প্রতিবেদন অনুযায়ী, মৃতদের মধ্যে কেউ জার্মানিতে কাজ করতেন, কারও আত্মীয় রয়েছে এখানে, আবার কেউ পরিস্থিতির কারণে জার্মানিতে পালিয়ে আসতে চেয়েছিলেন৷ যদিও কতজন আফগানের মৃত্যু হয়েছে, কী পরিস্থিতিতে ওই আফগানদের মৃত্যু হয়েছে তা নিয়ে সরকারের তরফে বিবৃতিতে নির্দিষ্ট করে কিছু বলা হয়নি৷

২০২১ সালের ২৭ অগাস্ট ফ্রাঙ্কফুর্টে পৌঁছান এই আফগান নাগরিকরা৷ ছবি: রয়টার্স
২০২১ সালের ২৭ অগাস্ট ফ্রাঙ্কফুর্টে পৌঁছান এই আফগান নাগরিকরা৷ ছবি: রয়টার্স


নিরাপদে ফিরিয়ে আনতে দেরি? আমলাতন্ত্রের জটিলতা?

দেশ ছেড়ে জার্মানিতে আসা আফগানেরা আমলাতান্ত্রিক জটিলতা-সহ নানা ধরনের অনিশ্চয়তার মুখে দিন কাটাচ্ছেন৷এমনটাই দাবি করেছেন ক্লারা৷ ২০২১ সালের আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান৷ সেই সময় ন্যাটো বাহিনী হাজারো আফগানকে নিরাপদ আশ্রয়ে পৌঁছে দিয়েছিল৷ তখন জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস জানিয়েছিলেন, তারা আফগান নাগরিকদের পাশে থাকবেন৷ কিন্তু বাস্তবে হাজারো আফগান সে দেশে রয়ে গিয়েছেন৷ নিরাপদে তাদের জার্মানিতে নিয়ে আসার প্রক্রিয়া নিয়ে বারবার সমালোচনার মুখে পড়ছে সরকার৷ 

স্পিগেলকে দেয়া একটি সাক্ষাৎকারে ক্লারা বলেন, ‘‘সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ৷ বেশ কয়েকজনের মৃত্যু পর্যন্ত ঘটেছে, এটা ভাবা যায় না৷’’ তার কথায়, ‘‘জার্মানির সুরক্ষা ব্যবস্থায় আস্থা রেখেছিলেন ওই আফগানেরা৷ তবুও তালেবানের হাত থেকে নিষ্কৃতি পেল না মানুষগুলো৷’’ নিরাপদে ফেরানোর প্রক্রিয়া এত দেরিতে শুরু হয়েছিল আর গোটা প্রক্রিয়াটা আমলাতান্ত্রিক হওয়ায় এমন ঘটনা, মত ক্লারার৷


আরকেসি/কেএম (মারিয়ন ম্যাকগ্রেগর)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন