উপকূলে টিউনিশিয়া কোস্ট গার্ডের টহলদল। ছবি: পিকচার এলায়েন্স
উপকূলে টিউনিশিয়া কোস্ট গার্ডের টহলদল। ছবি: পিকচার এলায়েন্স

ভূমধ্যসাগরের টিউনিসিয়া উপকূলে দুটি নৌকা ডুবির ঘটনায় গত সপ্তাহান্তে ছয় শিশুসহ ১৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩৭ অভিবাসীকে জীবিত উদ্ধার করা হলেও এখনও নিখোঁজ রয়েছে ১২ জন।

গত শুক্রবার ও শনিবার দুটি পৃথক নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে টিউনিশিয়া উপকূলে।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে মধ্যপূর্ব টিউনিশিয়ার স্ফাক্স আদালতের মুখপাত্র মুরাদ তুর্কি জানান, “৮ এপ্রিল শুক্রবার একটি নৌকা ডুবির ঘটনায় উপকূল থেকে চার নারী এবং চার শিশু সহ ৯টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।”

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত মোট ১৮ অভিবাসীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। আরও দুই অভিবাসী এখনও নিখোঁজ রয়েছে।

অপরদিকে, শনিবার ৯ এপ্রিল টিউনিশিয়া উপকূল থেকে ইউরোপের দিকে যাত্রা করা অন্য একটি নৌকাডুবির ঘটনায় আরও চারটি মৃতদেহ (দুই নারী এবং দুটি শিশু) উদ্ধার করা হয়েছিল।

নৌকাটি প্রায় ত্রিশ জন লোক নিয়ে ইউরোপীয় উপকূলের দিকে যাচ্ছিল বলে জানান স্ফাক্স আদালতের মুখপাত্র মুরাদ তুর্কি। 

তিনি আরও বলেন, দ্বিতীয় নৌকাডুবির পরে অন্তত ১৯ জন অভিবাসীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। তবে তাদের মধ্যে আরও ১০ জন এখনও নিখোঁজ রয়েছে।

টিউনিশিয়া কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, দুটি নৌকার সব যাত্রী সাব-সাহারান আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের নাগরিক। 

টিউনিসিয়ান অর্থনৈতিক ও সামাজিক অধিকার ফোরাম (এফটিডিইএস) এর মুখপাত্র রমদান বেন আমোর বলেন, ‘‘টিউনিশিয়ার আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতির অবনতি এবং রাজনৈতিক উত্তেজনাই অবৈধ যাত্রা বৃদ্ধির পেছনে মূল কারণ। ২০১৯ সাল থেকে টিউনিসিয়ায় রাজনৈতিক সংকট এবং সামাজিক প্রতিবাদের আন্দোলন বেড়েছে।’’


এমএইউ/আরআর


 

অন্যান্য প্রতিবেদন