ইটালির একটি ভবন নির্মাণ সাইটে কর্মরত একজন মিশরীয় অভিবাসী। ছবি: আনসা
ইটালির একটি ভবন নির্মাণ সাইটে কর্মরত একজন মিশরীয় অভিবাসী। ছবি: আনসা

ইটালির নির্মাণ খাতে শ্রমিক ঘাটতি মেটাতে ইটালি সরকার এবং সংশ্লিষ্ট সহযোগিদের মধ্যে একটি নতুন চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে । চুক্তি অনুযায়ী ৩,০০০ শরণার্থী মর্যাদাপ্রাপ্ত অভিবাসী ও অভিভাবকহীন নাবালককে প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হবে। উল্লেখ্য ইটালির নির্মাণ খাতে সংকট মেটাতে অতিরিক্ত ২ লাখ ৬০ হাজার শ্রমিকের প্রয়োজন।

ইটালির শ্রম ও সামাজিক নীতি বিষয়ক মন্ত্রী আন্দ্রেয়া অরল্যান্ডো সোমবার ১৬ মে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে, নির্মাণ খাতে তিন হাজার অভিবাসীদের প্রশিক্ষণ এবং নিয়োগের জন্য সংশ্লিষ্ট সহযোগিদের এবং সরকারের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছেন।

তার মতে, “শ্রমিকদের জন্য এবং দেশের জন্য একটি বড় সুযোগ।” 


প্রথমবারের মতো সাক্ষরিত এই উদ্যোগের সুবিধাভোগী হবেন মূলত ইটালিতে আশ্রয় আবেদন করে শরণার্থী মর্যাদাপ্রাপ্ত ব্যক্তি, প্রাপ্তবয়স্ক হতে চলেছেন এমন অভিভাবকহীন অপ্রাপ্তবয়স্ক এবং ইটালিতে আসা প্রাক্তন অভিভাকহীন নাবালকেরা যারা ইতিমধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক হয়েছেন। ইটালির সর্বত্র ছড়িয়ে থাকা আশ্রয় ও অভ্যর্থনাকেন্দ্রগুলো থেকে এসব সম্ভাব্য কর্মীদের বাছাই করা হবে।

পড়ুন>>ইটালি পৌঁছাতে কেন মরিয়া বাংলাদেশিরা

নতুন সম্পন্ন চুক্তির আওতায় নির্মাণ শিল্পে বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের জন্য জাতীয় সংস্থা দ্বারা সমন্বিত স্কুলগুলিতে অভিবাসীদের প্রশিক্ষণের জন্য অর্থায়ন এবং কোম্পানিগুলিতে শিক্ষানবিস হিসেবে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

অভিভাবকহীন নাবালকদের জন্যেও শিক্ষানবিস চুক্তির কাঠামো চুড়ান্ত করা হয়েছে। সফলভাবে প্রশিক্ষণ ও কোর্স শেষ করা নাবালকরা প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার সাথে সাথেই বিভিন্ন নির্মাণ কোম্পানিতে স্থায়ী চাকরির প্রস্তাব দেওয়া হবে।

ইটালির নির্মাণ খাত বর্তমানে যখন বড় ধরনের শ্রমিক সংকটে ভুগছে ঠিক সেই মুহুর্তে এই চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হল। ইটালীয় দৈনিক ফাতো কুতোদিয়ানো’র মতে, নির্মাণ খাতে বর্তমানে দুই লাখ ৬০ হাজার পদ শূন্য রয়েছে। এছাড়া অন্যান্য খাত যেমন পর্যটন শিল্পও একই সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।

ইটালি, ভূমধ্যসাগর হয়ে ইউরোপে ঢুকতে চাওয়া অভিবাসীদের জন্য প্রধান প্রবেশদ্বার। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে অভিবাসীরা যেন ইটালি ভূখন্ডে প্রবেশ করতে না পারে সেলক্ষ্যে অনেক ব্যবস্থা নিয়েছে দেশটির সরকার। 

অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে প্রয়োজন বিদেশি শ্রমিক

২০১৯ সালে দেশটির কট্টর ডানপন্থী নেতা মাত্তেও সালভিনির পরিবর্তে নতুন করে লুসিয়ানা ল্যামোরগেসকে মন্ত্রী করা হলে পরিস্থিতি কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। তবে সামগ্রিক অভ্যর্থনা নীতিতে এখনও বড় কোন পরিবর্তন আসে নি। 

ইটালীয় ক্যাথলিক এনজিও মাইগ্রেন্ট ফাউন্ডেশনের সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, “কোন সরকারেরই অভিবাসীদের ইটালীয় সমাজ অন্তর্ভুক্তি ও একীকরণের জন্য বাস্তবিক ও নিবেদিত কোন রাজনৈতিক প্রকল্প হাতে নিতে পারে নি।”

পড়ুন>>‘গ্যাংমাস্টার সিস্টেমের’ বিষয়ে ইটালিতে সংসদীয় উদ্যোগ দাবি

গত বছরের শেষে দিকে অভিবাসন বিষয়ক গবেষক আলডো লিগা ইনফমাইগ্রেন্টসকে বলেছিলেন, সরকারগুলো এসব সিদ্ধান্তে তিনি লজ্জিত ও অনুতপ্ত।

ইটালিতে বার্ধক্যজনিত জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় অভিবাসী কর্মীদের সাহায্য ছাড়া দেশটির সামাজিক সুরক্ষা ব্যবস্থা ও শ্রমখাত চালিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে না।  

এই বাস্তবাতায় ইটালি সরকার পুরোপুরি স্বীকার না করলেও তাদের বিভিন্ন বক্তব্যে বুঝা গেছে দেশটির অর্থনীতিকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিদেশিদের প্রয়োজন।

২০২১ সালের শেষ দিকে, কোভিড -১৯ মহামারীর পরে দেশটির অর্থনীতি পুনর্নির্মাণের জন্য ইটালিতে ব্যাপক বিদেশী কর্মীর প্রয়োজন ছিল। সরকার একটি ডিক্রি জারি করে আলজেরীয়, বাংলাদেশি এবং আইভরি কোস্টের নাগরিকদের জন্য মোট ৬৯,৭০০টি ওয়ার্ক পারমিট ভিসার অনুমোদন দিয়েছিল। যা আগের বছরের তুলনায় দ্বিগুণ।

ডিক্রিতে উল্লেখিত খাতগুলোর মধ্যে ছিল পণ্য পরিবহন, নির্মাণ এবং হোটেল শিল্প। 


এমএইউ/আরআর



 

অন্যান্য প্রতিবেদন