ফাইল ফটো: লিবিয়া থেকে সমুদ্রপথে ইউরোপে আসতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হন অভিবাসী ও শরণার্থীরা | ছবি: পিকচার অ্যালায়েন্স
ফাইল ফটো: লিবিয়া থেকে সমুদ্রপথে ইউরোপে আসতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হন অভিবাসী ও শরণার্থীরা | ছবি: পিকচার অ্যালায়েন্স

লিবিয়ার সমুদ্র উপকূলে নৌকাডুবিতে অন্তত চারজন অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে এবং তিনজন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন৷ আবহাওয়া উষ্ণ থাকায় উত্তর আফ্রিকার দেশটি থেকে অনেক অভিবাসী নৌকায় করে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টা করছেন৷

লিবিয়ার উপকূলরক্ষী বাহিনী জানিয়েছে যে মঙ্গলবার নৌকা ডুবির সময় ঘটনাস্থল থেকে ১৩ জনকে জীবিত উদ্ধার সম্ভব হয়েছে৷ ইউরোপমুখী যাত্রার সময় নৌকাটি ডুবে যায় বলেও জানিয়েছে বাহিনীটি৷  

এক বিবৃতিতে উপকূলরক্ষী বাহিনী লিখেছে, ‘‘উদ্ধারকৃত অভিবাসীদের মেলিটা বন্দরে নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে৷ তাদেরকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হবে৷’’

উদ্ধারকৃতদের মধ্যে ১২ জন সিরীয় এবং একজন মিশরের নাগরিক বলেও জানা গেছে৷ যারা মারা গেছেন তাদের নাগরিকত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত না হওয়া গেলেও লিবীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে মৃতদের তিনজন পুরুষ ও একজন নারী৷ 


পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাণঘাতী সমুদ্রপথ 

উত্তর আফ্রিকার দেশটির বিভিন্ন অংশে এখন কার্যত কোনো আইনের শাসন নেই৷ ২০১১ সালের বিদ্রোহী দেশটির দীর্ঘদিনের শাসক মোয়াম্মর গাদ্দাফি এবং তার স্বৈরাচারী শাসকগোষ্ঠীর পতনের পর বিভিন্ন গোষ্ঠী দেশটির ক্ষমতা দখল করতে চেয়েছে৷ বর্তমানে দেশটিতে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত যে সরকার রয়েছে, সেটির পক্ষে লিবিয়ার অনেক অংশে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা এখনো সম্ভব হয়নি৷

এই বিশৃঙ্খলার মাঝেই মানবপাচারকারীরা লিবিয়াকে আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে আসা অনিয়মিত অভিবাসীদের ইউরোপমুখী যাত্রা শুরুর কেন্দ্রে পরিনত করেছে৷ 

ইইউ রাষ্ট্র ইটালি থেকে ৩০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত লিবিয়া থেকে নৌকায় করে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে প্রতিবছর অনেকে সাগরে ডুবে প্রাণ হারান৷ বিশ্বের সবচেয়ে প্রাণঘাতী সমুদ্রপথ হিসেবে বিবেচিত মধ্যভূমধ্যসাগরে চলতি বছর ইতোমধ্যে ১২৯ জন ইউরোপমুখী অভিবাসী প্রাণ হারিয়েছেন, নিখোঁজ অন্তত ৪৫৯ জন৷ 

এআই/কেএম

 

অন্যান্য প্রতিবেদন