উপকূলে টিউনিশিয়া কোস্ট গার্ডের টহলদল। ছবি: পিকচার এলায়েন্স
উপকূলে টিউনিশিয়া কোস্ট গার্ডের টহলদল। ছবি: পিকচার এলায়েন্স

টিউনিশিয়া কর্তৃপক্ষ বুধবার জানিয়েছে, দেশটির উপকূল থেকে ১৪৪ জন অভিবাসন প্রত্যাশীকে উদ্ধার করা হয়েছে। এই অভিবাসীরা অস্থায়ী নৌকায় ইউরোপে পৌঁছানোর চেষ্টা করছিলেন।

২২ জুন বুধবার, দক্ষিণ-পূর্ব টিউনিশিয়ার উপকূল থেকে দেশটির নৌবাহিনী ১৪৪ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করেছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

টিউনিশিয়ার ন্যাশনাল গার্ডের ডিরেক্টরেট জেনারেলের মুখপাত্র হোসেম এডিন জেবালি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন, “উদ্ধারকৃতদের মধ্যে আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের ১০৯ জন ব্যক্তি রয়েছেন।”

এই মুখপাত্র আরো জানান, “উদ্ধার অভিযানের পাশাপাশি একই সময়ে অবৈধ সমুদ্র পারাপারের ছয়টি প্রচেষ্টা আটকে দেয়া হয়েছে।”

আরও পড়ুন>> অভিবাসীদের ক্রমাগত আগমনে হিমশিম খাচ্ছে লাম্পেদুসা

টিউনিশিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব দিকের স্ফ্যাক্স এবং জারজিস শহর ইটালি পৌঁছতে ইচ্ছুক অভিবাসীদের কাছে জনপ্রিয় বলে পরিচিত।

শীতের শেষে আবহাওয়ার অবস্থার উন্নতি হওয়ায় এবং টিউনিশিয়ার অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকটের আরো প্রকট হওয়ায় বহু অভিবাসী দেশটির উপকূল থেকে ইউরোপে পৌঁছানোর আশায় যাত্রা করছে।


ভূমধ্যসাগর থেকে অভিবাসীদের উদ্ধার করে টিউনিশিয়া উপকূলে নিয়ে আসা হয়। ছবি: রয়টার্স
ভূমধ্যসাগর থেকে অভিবাসীদের উদ্ধার করে টিউনিশিয়া উপকূলে নিয়ে আসা হয়। ছবি: রয়টার্স


সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে ভূমধ্যসাগরের টিউনিশিয়া উপকূলে অভিবাসী আসার হার উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

উত্তর আফ্রিকা থেকে আসা অভিবাসীদের জন্য ইউরোপে প্রবেশের অন্যতম জায়গা ইটালি। আন্তর্জাতিক অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা (আইওএম) এর পরিসংখ্যান অনুসারে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ২৪ হাজার ৫০০ জনেরও বেশি অভিবাসী সমুদ্রপথে ইটালিতে পৌঁছেছে। যেটি গত বছর ছিল প্রায় ৬৭ হাজার ৫০০ জন।

পড়ুন>>ইটালিতে রেকর্ড সংখ্যক অপ্রাপ্তবয়স্ক অভিবাসীর প্রবেশ

সমুদ্র পেরোতে চাওয়া সব অভিবাসীরা ইটালিতে পৌঁছতে সক্ষম হয় না। যদিও টিউনিশীয় এবং ইটালি উপকূলের মধ্যে দূরত্ব মাত্র ১০০ কিলোমিটার, তবে এই রুট বেশ ঝুঁকিপূর্ণ।

অধিকাংশ অভিবাসীই অস্থায়ী নৌকায় চড়ে উপকূল থেকে যাত্রা করে থাকেন। এসব নৌকা বেশিরভাগ সময় ধারণ ক্ষমতা চেয়ে বেশি যাত্রী বহন করে থালে। সমুদ্রের তীব্র ঢেউয়ে যে কোনো সময় অস্থায়ী নৌকা ডুবে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। 


এমএইউ/আরকেসি








 

অন্যান্য প্রতিবেদন