(ফাইল ছবি)চ্যানেলে ২৭ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যের অভিবাসন নীতি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। ছবি:রয়টার্স
(ফাইল ছবি)চ্যানেলে ২৭ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যের অভিবাসন নীতি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। ছবি:রয়টার্স

গত বছররে নভেম্বরে ইংলিশ চ্যানেলের ফরাসি উপকূল কালেতে এক নৌকাডুবির ঘটনায় নিহত হন ২৭ অভিবাসী। এই ঘটনার তদন্তে চলতি সপ্তাহে দশ জনকে আদালতে তোলা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে অভিবাসীদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা এবং ঝুঁকিতে ফেলার অভিযোগ আনা হয়েছে।

২০২১ সালের নভেম্বরে চ্যানেলে ঘটা ভয়াবহ দূর্ঘটনায় ২৭ ব্যক্তির মৃত্যুর তদন্তে অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে ২৯ জুন বুধবার প্যারিসের আদালতে তোলা হয়েছে। 

ফরাসি বিচার বিভাগের একটি সূত্র জানিয়েছে, এই মামলার অন্য নয় জন অভিযুক্তকে ৩০ জুন বৃহস্পতিবার প্যারিসের আদালতে হাজির করা হয়েছে। তাদের সামনে বিচারকের নিকট অভিবাসীদের ডুবে যাওয়ার ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়েছে। 

পড়ুন>>পরিচয় মিলেছে ইংলিশ চ্যানেলে প্রাণ হারানো এক ব্যক্তির

ফরাসি দৈনিক লো প্যারিসিয়া এবং সংবাদ মাধ্যম আরটিএল নিশ্চিত করেছে, চ্যানেলে নৌকাডুবির ঘটনায় রোববার এবং সোমবার মোট ১৬ সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। যাদের মধ্যে ১৩ জন পুরুষ এবং দুই নারী ছিলেন। তবে গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে পাঁচ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের পরে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

আদালতে তোলা ব্যক্তিদের মধ্যে একজনকে অভিবাসীদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা, ঝুঁকিতে ফেলা এবং একটি সংগঠিত গ্যাংয়ের একজন বিদেশী নাগরিককে বেআইনিভাবে ফ্রান্সে প্রবেশ ও থাকতে সাহায্য করার জন্য অভিযুক্ত করা হয়েছে। তাকে পুলিশ হেফাজতে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন>>অভিবাসীদের যন্ত্রণার ভয়াবহ কয়েকটি ঘটনা

এছাড়া অন্য নয় জনকে একজন তদন্তকারী ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে তোলা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধেও বিভিন্ন অভিযোগ আনার সম্ভাবনা রয়েছে।

নিহতরা বয়স ৭ থেকে ৪৬ বছর 

এর আগে ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর প্রসিকিউশন দপ্তর থেকে জানানো হয়েছিল, দুর্ঘটনায় নিহত শেষ ব্যক্তির পরিচয় সনাক্ত করা হয়েছে। তিনি ২৯ বছর বয়সি ভিয়েতনামের নাগরিক। নিহত ব্যক্তির পরিচয় পাওয়ার আগে তাকে অজ্ঞাতনামা হিসেবে পরিচয় দেয়া হয়েছিল৷ আর পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে নিজের নামেই সমাহিত করার অনুমতি দিয়েছে প্রসিকিউশন। 

ভুক্তভোগীদের শনাক্ত করতে গঠিত ফরাসি ন্যাশনাল জেন্ডারমেরি এর ক্রিমিনাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট এবং লিল হাসপাতালের কেন্দ্রের যৌথ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ১৩ ডিসেম্বর নিহতদের মধ্যে ২৬ জনের পরিচয় চিহ্নিত করা হয়েছিল।

পড়ুন>>আশ্রয়প্রার্থীদের ইলেকট্রনিক ব্রেসলেট পরানোর পরিকল্পনা যুক্তরাজ্যের

নৌকাডুবিতে নিহতদের ১৬ জন ইরাকি কুর্দি, একজন ইরানের কুর্দি, তিনজন ইথিওপিয়ান, একজন সোমালি, চারজন আফগান এবং একজন মিশরীয় নাগরিক৷ তাদের সবাই ৭ থেকে ৪৬ বছর বয়সি অভিবাসী ছিলেন। 

নৌকাডুবির এ ঘটনা ফ্রান্স এবং যুক্তরাজ্যে একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক প্রভাব সৃষ্টি করেছিল। নিহতদের মধ্যে সাত জন নারী, ১৬ বছর বয়সি এক কিশোর এবং একটি ৭ বছরের শিশু ছিল।

তদন্ত অনুসারে, নিহত অভিবাসীরা উত্তর ফ্রান্সের গ্রন্দ-সান্থেঁ এর কাছে লুন সমুদ্র সৈকত থেকে ভোর রাতের দিকে একটি অস্থায়ী জেটস্কি সদৃশ নৌকায় যাত্রা করেছিল।

কিন্তু এত ঘটনা সত্ত্বেও, ফরাসি উপকূল থেকে অবৈধভাবে চ্যানেল পাড়ি দিয়ে যুক্তরাজ্যে পৌঁছাতে ইচ্ছুক অভিবাসীদের সংখ্যা বছরের প্রথমার্ধে ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। 

আরও পড়ুন>> উপকূলে ব্যাপক কড়াকড়ি সত্ত্বেও বেড়েছে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ির প্রচেষ্টা

২০২২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ১৩ জুন পর্যন্ত ইংলিশ চ্যানেলে ৭৭৭টি অবৈধ সমুদ্র পারাপারের ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে। এসব যাত্রায় ২০,১৩২ জন অনিয়মিত অভিবাসী বিভিন্ন ছোট নৌকায় যুক্তরাজ্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করেছেন।



এমএইউ/আরআর


 

অন্যান্য প্রতিবেদন