ইটালিতে আসার প্রস্তুতিকালে লিবিয়ায় শরণার্থীরা
ইটালিতে আসার প্রস্তুতিকালে লিবিয়ায় শরণার্থীরা

লিবিয়ায় আটকে থাকা বিভিন্ন দেশের অন্তত ৯৫ জন শরণার্থী ইউএনএইচসিআর-এর চার্টার ফ্লাইটে ইটালি পৌঁছেছেন৷ দেশটির সরকার ও বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে সমন্বিত এক উদ্যোগের ধারাবাহিকতায় তাদের নিয়ে আসা হয়েছে৷

লিবিয়ায় বিভিন্ন ক্যাম্পে বন্দি থাকা এই শরণার্থীরা ‘নির্যাতন ও ভয়াবহ সহিংসতার’ শিকার বলে জানিয়েছে সংস্থাগুলো৷ তাদের মধ্যে কেউ কেউ মানবপাচারের শিকার, কারো শারীরিক পরিস্থিতি গুরুতর ছিল বলেও জানানো হয়েছে৷ এই অভিবাসীদের বেশিরভাগের দেশ আফ্রিকার সাউথ সুদান, ইরিত্রিয়া, ইথিওপিয়া, সোমালিয়া ও ক্যামেরুন৷ আছেন মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সিরিয়ার মানুষও৷ তাদেরকে এখন ইটালির বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানো হবে বলে জানা গেছে৷

গত বছরের এপ্রিলে ইটালির স্বরাষ্ট্র এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ইউএনএইচসিআরসহ বেশ কয়েকটি শরণার্থী সংস্থার একটি চুক্তি হয়৷ চুক্তির অধীনে লিবিয়া থেকে শরণার্থীদের নিয়ে আসার এমন তৃতীয় ফ্লাইট এটি৷

বৃহস্পতিবার ফিউমিচিনো বিমানবন্দরে শরণার্থীদের বহনকারী ফ্লাইটটি অবতরণ করে৷ সান্ট এজিদিও, এফসিইআই এবং ভালদেনসিয়া কমিউনিটি নামের তিনটি সংস্থা তাদেরকে ইটালির সমাজের মূল ধারায় আত্তীকরণ বা ইন্টেগ্রেশনের ব্যবস্থা করবে৷ ইটালির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অভিবাসন নীতি বিষয়ক মহাপরিচালক লুইগি ভিগনালি জানান, লিবিয়া থেকে ঝুঁকিতে থাকা অভিবাসীদের জরুরি ভিত্তিতে সরিয়ে নিতে উদ্যোগ নিয়েছে দেশটির সরকার৷ উত্তর আফ্রিকার দেশটির আটককেন্দ্র থেকে শরণার্থীদের মুক্ত করতে সরকারি সংস্থা ও নাগরিক সমাজ একসঙ্গে কাজ করছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি৷

পড়ুন: কেন সমুদ্রপথে ইটালিতে হাজারো মিশরীয় অভিবাসী?

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নাগরিক স্বাধীনতা ও অভিবাসন বিষয়ক বিভাগের প্রধান ফ্রান্সেকা ফেরান্দিনো বলেন, তার মন্ত্রণালয় শরণার্থী ও ঝুঁকিতে থাকাদের জন্য ইটালিতে আসার বৈধ পথকে শক্তিশালী করার জন্য কাজ করছে৷ লিবিয়া থেকে ‘মানবিক করিডরের’ এই ব্যবস্থা ঝুঁকিতে থাকা শরণার্থীদের উদ্ধারের সঠিক উপায় বলেও মন্তব্য করেন তিনি৷

ইউএনএইচসিআর জানিয়েছে, ২০১৭ সালের পর লিবিয়া থেকে ছয় হাজার ১৪৫ শরণার্থীকে সরিয়ে নিয়েছে সংস্থাটি৷ এর মধ্যে ইটালিতে এসেছেন ৯৯৭ জন৷ মানবিক ফ্লাইট পরিচালনায় লিবিয়া সরকারের নিষেধাজ্ঞায় এক বছরের বিরতির পর ২০২১ সালে আবারও এই প্রক্রিয়া চালু হয়৷

ইউএনএইচসিআর এর হিসাবে ২০২৩ সাল নাগাদ ২০ লাখের বেশি শরণার্থীকে বিভিন্ন দেশে সরিয়ে নিতে হবে৷

পড়ুন: ইটালির কৃষিখাতে সাড়ে তিন লাখ বিদেশি

এফএস/আরআর (আনসা)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন