ইতালির পালের্মো বন্দরে ডক্টরস উইদাউট বর্ডার দ্বারা পরিচালিত জাহাজ জিও ব্যারেন্টস থেকে তরুণ অভিবাসীরা নামছেন৷ ছবি: আর্কাইভ/আনসা/ইগোরপেটাইক্স
ইতালির পালের্মো বন্দরে ডক্টরস উইদাউট বর্ডার দ্বারা পরিচালিত জাহাজ জিও ব্যারেন্টস থেকে তরুণ অভিবাসীরা নামছেন৷ ছবি: আর্কাইভ/আনসা/ইগোরপেটাইক্স

১৫ বছরের মিশরীয় এক কিশোর প্রথমে সিসিলির দক্ষিণাঞ্চলের দ্বীপে পৌঁছায়৷ এরপর ইটালিতে ঘুরে বেড়াচ্ছিল সে৷ পিসাতে পুলিশের কাছে গিয়ে খাবার এবং সাহায্য চাওয়ায় এই ঘটনাটি নজরে আসে৷ পুলিশ জানায়, এটি কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয় এবং যে সঙ্গীহীন অপ্রাপ্তবয়স্করা প্রায়ই এই পরিস্থিতিতে পড়েন৷

পিসার টুস্কান শহরে একাই ঘুরে বেড়িয়েছে মিশরীয় ওই কিশোর৷ সোমবার (১১ জুলাই) বিকেলে শহরের থানায় সাহায্য চাইতে যায়৷ সে অফিসারদের জানায়, সিসিলি থেকে গোটা রাস্তা একাই এসেছে সে৷সিসিলিতে একাধিক অভিবাসীদের সঙ্গে ইটালিতে এসে পৌঁছায় সে৷ এই কিশোর ইটালিয়ান বা ফরাসি ভাষায় কথা বলতে পারেনি৷ তার কাছে কোনো নথিও মেলেনি৷

আরবি ভাষায় দক্ষ এক নারী পুলিশ অফিসার ওই কিশোরের ভাষা বুঝতে সাহায্য করেন কর্তৃপক্ষকে৷ কিশোর ওই অফিসারকে জানায়, মিশর থেকে প্রথমে সে কাতানিয়াতে এসেছিল৷ এরপর ট্রেনে করে টুস্কান শহরে পৌঁছায় সে৷ এ বিষয়ে আর কোনো বিস্তারিত তথ্য মেলেনি৷

পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, ইটালিতে ওই কিশোরের কোনো আত্মীয় বা পরিচিত নেই৷ তাকে খাওয়াদাওয়া করতে সাহায্য করে পুলিশ৷ এরপর নাম নিবন্ধিত করতে এবং মেডিকেল চেকআপের জন্য সিসানেলোর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷

পিসার কাছে একটি এনজিওর আবাসনে তাকে রাখা হয়েছে৷সেখানে কয়েকটি জায়গা ছিল, যেগুলিতে বিনামূল্যে থাকা যায়৷ যাতে অন্য কোনো শহর বা এলাকায় ওই কিশোরকে যেতে না হয়, তাই তাকে ওই আবাসনে রাখা হয়েছে৷ 

বিচ্ছিন্ন গল্প নয়

পিসার পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন, কিশোরদের এভাবে একা হয়ে যাওয়া বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়৷ সাহায্যের জন্য কাউকে না পেয়ে ইটালিতে পৌঁছানো নাবালকদের এই সমস্যা অচেনা নয়৷

গত মাসে, চার তরুণ অভিবাসী পিসার কেন্দ্রীয় পুলিশ স্টেশনে সাহায্য চায়৷ পুলিশ সূত্র জানিয়েছে, তারা সবাই নাবালক৷ পরিবারের সদস্য বা পরিচিতি ছাড়াই ইটালিতে পৌঁছেছিল তারা৷

মিশরীয় কিশোর ছাড়াও অন্য নাবালকদের মধ্যে একজন টিউনিশিয়ার নাগরিক এবং দুইজন পাকিস্তানি৷ তারা থাকার জন্য একটি নিরাপদ জায়গা খুঁজে পেয়েছে৷ পুলিশ বলেছে, তারা জানত না যে এখানে তারা ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত পড়াশোনা করতে পারে এবং একটি অন্য দেশের সঙ্গেও পরিচিত হতে পারে৷


আরকেসি/এসিবি (আনসা)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন