জাতীয় উপকূলরক্ষী টিউনিশিয়ার স্ফ্যাক্সে ২০২২ সালের ২৩ এপ্রিল অভিবাসীদের সাহায্য করছে৷ একটি ভিডিও থেকে স্ক্রিনগ্র্যাব নেয়া হয়েছে৷ ছবি: ওয়াহিদ দাহেচ/ হ্যান্ডআউট রয়টার্সের মাধ্যমে
জাতীয় উপকূলরক্ষী টিউনিশিয়ার স্ফ্যাক্সে ২০২২ সালের ২৩ এপ্রিল অভিবাসীদের সাহায্য করছে৷ একটি ভিডিও থেকে স্ক্রিনগ্র্যাব নেয়া হয়েছে৷ ছবি: ওয়াহিদ দাহেচ/ হ্যান্ডআউট রয়টার্সের মাধ্যমে

১৮ জুলাই উপকূলরক্ষী জানিয়েছে, তারা ১৭ জুলাই মাঝরাতে মোট ৪৫৫ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করেছে৷ ভূমধ্যসাগরীয় দেশটি অনিয়মিত অভিবাসন রুখতে নিরাপত্তা জোরদার করেছে৷

উপকূলরক্ষী বাহিনীর একজন মুখপাত্র বলেছেন একাধিক অভিযানে ৪৫৫ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে, যার মধ্যে ২৮৯ জন সাব-সাহারান আফ্রিকার বাসিন্দা, বাকিরা টিউনিশিয়ার নাগরিক৷

ন্যাশনাল গার্ড একটি বিবৃতিতে যোগ করেছে, ‘উত্তর, কেন্দ্র, পূর্ব ও দক্ষিণে টিউনিশিয়ার ন্যাশনাল গার্ড ইউনিট সামুদ্রিক সীমানায় মোট ৩৭টি অনিয়মিত প্রবেশ আটকে দিয়েছে৷’

ইউরোপীয় ইউনিয়নে পৌঁছানোর জন্য টিউনিশিয়া একটি অন্যতম প্রবেশদ্বার৷ উত্তর আফ্রিকার দেশ থেকে বেশিরভাগ অভিবাসী ইটালি যেতে চান৷

বসন্ত এবং গ্রীষ্মে আবহাওয়া অনুকূল হওয়ার কারণে অভিবাসীদের সংখ্যা বাড়ে৷ তবে অনেক সময় আবহাওয়া প্রতিকূল থাকে৷ প্রতি বছর ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে শত শত অভিবাসী প্রাণ হারান৷

অভিবাসীদের সামলাতে টিউনিশিয়ার কর্তৃপক্ষ হিমশিম খাচ্ছেন

সাম্প্রতিক সপ্তাহে টিউনিশিয়ার উপকূলরক্ষীরা সমুদ্রপথে অভিবাসীদের প্রবেশ আটকাতে একাধিক অভিযান পরিচালনা করেছে৷

উপকূলরক্ষীরা জানিয়েছে, মে মাসের শেষের দিকে, তারা একটি নৌকা থেকে ২৪ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করেছে৷ টিউনিশিয়ার বন্দর নগরী স্ফ্যাক্সের কাছে নৌকাটি ডুবে গিয়েছিল৷ নৌকাটি লিবিয়া থেকে এসেছিল বলে জানা গিয়েছে৷একই সময়ে নিখোঁজ হয়েছেন ৭০ জনেরও বেশি অভিবাসী৷

মে মাসের শুরুতে, টিউনিশিয়ার উপকূলে ডুবে যাওয়া একটি নৌকায় তিন জন অভিবাসীর দেহ উদ্ধার হয়েছে৷ সেই সময় উপকূলরক্ষীরা পৃথক অভিযানে আরো ২৪৮ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করেছিল৷

গত বছর ১৫ হাজার অভিবাসী টিউনিশিয়া থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে পৌঁছানোর চেষ্টা করেছিল৷ টিউনিশিয়ার ফোরাম ফর ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল রাইটস অনুসারে, ২০২০ সালে ১৩ হাজারের থেকে কম সংখ্যক ব্যক্তি টিউনিশিয়া থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে পৌঁছানোর চেষ্টা করেছেন৷

২০২১ সালে প্রায় দুই হাজার অভিবাসী নিখোঁজ হয়েছেন বা ভূমধ্যসাগরে ডুবে গিয়েছেন৷ আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) অনুসারে, এই সংখ্যা ২০২০ সালে ছিল এক হাজার ৪০১ জন৷

দক্ষিণ টিউনিশিয়ায় সেনা নিহত

অভিবাসন সমস্যা নিয়ে জর্জরিত টিউনিশিয়া কর্তৃপক্ষ৷ আরো বেশি সংখ্যক অভিবাসী দেশটির উপকূল থেকে ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টা করছে৷ এর ফলে চোরাচালান বেড়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ৷

টিউনিশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সোমবার, লিবিয়া থেকে আলজেরিয়ায় যানবাহন পাচারের সময় মানবপাচারকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে এক সেনা নিহত হয়েছেন৷

মঙ্গলবার বিকেলে, বুর্জ আল-খাদ্রার সীমান্ত এলাকায় সামরিক টহল চলছিল৷ তখন ছয়টি গাড়ি চোরাচালান করার জন্য প্রবেশের চেষ্টা করেছিল৷ মন্ত্রণালয় বলেছে, গাড়ির আরোহীরা প্রথমে টহলদারি সেনাদের উপর গুলি চালায়৷ গুলিতে এক সেনাকর্মী নিহত হন এবং আরেকজন আহত হয়েছেন৷

এই বিশেষ ঘটনাটি অভিবাসন-সম্পর্কিত কিনা তা স্পষ্ট নয়৷ বিভিন্ন পণ্য যেমন বৈদ্যুতিন যন্ত্র নিয়মিতভাবে লিবিয়া, টিউনিশিয়া এবং আলজেরিয়ার সীমান্ত এলাকায় পাচার করা হয়৷ তবে তা সমুদ্রপথে নয়৷


আরকেসি/ কেএম

 

অন্যান্য প্রতিবেদন