(ফাইল ছব) ইটালি উপকূলে আসা অভিবাসী বোঝাই একটি নৌকা। ছবি: আনসা
(ফাইল ছব) ইটালি উপকূলে আসা অভিবাসী বোঝাই একটি নৌকা। ছবি: আনসা

গত জুলাইতে একটি মাছ ধরার নৌকা থেকে পাঁচ অভিবাসনপ্রত্যাশীকে মৃত অবস্থায় উদ্ধারের ঘটনায় পাঁচ মিশরীয় নাগরিকককে গ্রেপ্তার করেছে ইটালির পুলিশ৷ সিসিলি থেকে গ্রেপ্তারকৃত এই ব্যক্তিরা মানবপাচারে জড়িত বলে ধারণা পুলিশের৷

২৩ জুলাই লিবিয়া উপকূল থেকে যাত্রা করা একটি নৌকা ৬৭৪ জন অভিবাসী নিয়ে ইটালির দক্ষিণে অবস্থিত ক্যালাব্রিয়া উপকূলে পৌঁছায়৷ ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই নৌকাটিকে সেদিন ইটালির কোস্টগার্ডের তিনটি টহল নৌকা এবং একটি পুলিশ ইউনিট উদ্ধার করে৷

ইটালি কর্তৃপক্ষের একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নৌকা থেকে পড়ে যাওয়া কিছু অভিবাসীকে সরাসরি সমুদ্র থেকে উদ্ধার করা হয়৷ উপকূলরক্ষীরা জানান, নৌকায় পানিশূন্যতার কারণে পাঁচ যাত্রী আগেই প্রাণ হারান৷ 

শনিবার ক্যালাব্রিয়ায় আসা এই অভিবাসীদের মধ্যে ১৭৯ জনের প্রথম দলটিকে সোমবার সকালে ইটালির সিসিলি দ্বীপের মেসিনা বন্দরে স্থানান্তরিত করা হয়৷ নিহতদের মরদেহও সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়৷ 

পড়ুন>>প্রাপ্তবয়স্কদের সঙ্গে নাবালকের ঠাঁই, ইটালির নিন্দায় ইসিএইচআর

বেঁচে যাওয়া অভিবাসীদের সাক্ষ্যের ভিত্তিতেই তাদের সাথে থাকা ২১ থেকে ২৮ বছর বয়সি পাঁচ মিশরীয়কে মানবপাচার ও অভিবাসীদের মৃত্যুর ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ৷  

আদালতে দায়ের করা অভিযোগে বলা হয়েছে, অভিযুক্তরা অর্থের বিনিময়ে নৌকায় পানি ও খাদ্য সরবরাহ করত৷ ইটালীয় সংবাদপত্র টুডে জানিয়েছে, প্রসিকিউটর তাদের বিরুদ্ধে অবৈধ অভিবাসনে সহায়তা ও প্ররোচনার অভিযোগের পাশাপাশি পাঁচজনের মৃত্যুর জন্য তাদের দায়ী করেছেন৷

যা ঘটেছিল

সংবাদ মাধ্যম টুডেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে নৌকায় থাকা অভিবাসীরা জানান, যাত্রার আগে তারা লিবিয়ার উপকূলের একটি কেন্দ্রে প্রায় এক মাস অবস্থান করেন৷ ১৯ জুলাই সন্ধ্যায় তারা যাত্রা করেন৷ ভূমধ্যসাগর অতিক্রমের এক পর্যায়ে নৌকা পরিচালনাকারীরা ইঞ্জিন বন্ধ করে দিয়ে একটি স্যাটেলাইট যন্ত্রের সাহায্যে উদ্ধারের আহবান জানায়৷ পরবর্তীতে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে তারা অনেক অভিবাসীকে সমুদ্রেও নিক্ষেপ করে৷

সিসিলি মেসিনা অঞ্চলের প্রসিকিউটর জানান, ‘‘নৌকায় অভিবাসীরা অত্যন্ত কঠিন সময় কাটিয়েছেন৷ সেখানে পানি এবং খাদ্য বিতরণে অমানবিক রেশন ব্যবস্থা চালু করা হয়েছিল৷ এমনকি ১০ জন অভিবাসীকে এক কাপ কফি ভাগ করে পান করতে দেয়া হয়েছিল৷’’

পড়ুন>>ইটালি: ভ্যানে ৩৪ জন অভিবাসী, মানবপাচারের অভিযোগে গ্রেপ্তার চালক

নৌকায় থাকা অভিবাসীরা জানিয়েছেন,

ক্ষুধার্ত হয়ে খাবার চাইতে গেলে তাদের লাঠি ও রড় দিয়ে মারধর করা হতো৷ এছাড়া নৌকা পরিচালনাকারীরা এক যাত্রীকে পানীয় জল সরবরাহের ব্যবস্থাপনা ও রেশনিংয়ের দায়িত্ব দেয়৷ তিনি এই দায়িত্ব পালনে অস্বীকার করলে তাকে বেধড়ক মারধর করা হয়৷

নির্যাতন ও পানীয় জলের অভাবে তাদের কেউ কেউ সমুদ্রের নোনা জল পান করতেও বাধ্য হন৷ এরমধ্যে পানিশূন্যতায় ভোগা পাঁচ যাত্রী ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে উপকূলে পৌঁছাতে পারলেও শেষ পর্যন্ত তারা বেঁচে ছিলেন না৷

ইটালির উপকূলের কাছাকাছি মধ্য-ভূমধ্যসাগরে এই পথটি বিপজ্জনক হওয়া সত্ত্বেও অভিবাসীদের কাছে জনপ্রিয়৷

পড়ুন>>ইটালিতে চিকিৎসায় সুস্থ, দেশে ফিরতে চান ইউক্রেনীয়

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা-আইওএম এর তথ্য অনুযায়ী, বছরের শুরু থেকে ইউরোপে পৌঁছানোর চেষ্টা করে এই পথে ৮২৮ অভিবাসী মারা গেছেন৷ পাশাপাশি, ২০১৪ সাল থেকে এই পর্যন্ত প্রায় ২০ হাজার ব্যক্তি মৃত বা নিখোঁজ হয়েছেন৷


এমএইউ/এফএস 


 

অন্যান্য প্রতিবেদন