(ফাইল ছবি) হাঙ্গেরিতে কড়া পুলিশি টহল ফাঁকি দিতে গিয়ে নিয়মিত দূর্ঘটনায় পড়ে অনিয়মিত অভিবাসীদের বহনকারী গাড়িগুলো। ছবি: পিকচার এলায়েন্স।
(ফাইল ছবি) হাঙ্গেরিতে কড়া পুলিশি টহল ফাঁকি দিতে গিয়ে নিয়মিত দূর্ঘটনায় পড়ে অনিয়মিত অভিবাসীদের বহনকারী গাড়িগুলো। ছবি: পিকচার এলায়েন্স।

হাঙ্গেরির দক্ষিণে শুক্রবার সড়ক দুর্ঘটনায় তিন অভিবাসী নিহত এবং ১১ জন আহত হয়েছেন। বুদাপেস্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, একজন মানব পাচারকারীর কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

হাঙ্গেরি পুলিশের একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দেশটির রাজধানী বুদাপেস্ট থেকে ১২২ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত বোকসা গ্রামের কাছে তিন জন অনিয়মিত অভিবাসীর মৃত্যু ঘটেছে। 

সড়কে থাকা পুলিশের চেকপয়েন্ট এড়াতে ১৫ জন অভিবাসী বহনকারী একটি ভ্যান অন্য একটি গাড়িকে ধাক্কা দিলে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত ঘটে।

পুলিশের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, ভ্যানে থাকা অভিবাসীদের মধ্যে দুজন ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং তৃতীয়জন হাসপাতালে মারা যান। এছাড়া আহত ১১ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এই ঘটনায় জড়িত গাড়ির চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি জর্জিয়ার নাগরিক বলে জানা গেছে। 

পড়ুন>>সার্বিয়া-হাঙ্গেরি সীমান্তশিবিরে তিন হাজার অভিবাসী

স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, গাড়ি চালক একটি সংঘবদ্ধ মানব পাচার চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে ধারনা করা হচ্ছে। 

হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অর্বানের একজন উপদেষ্টা জানিয়েছেন, ২০২২ সালের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ১৫৭,০০০ অভিবাসী হাঙ্গেরির সীমান্তে পৌঁছেছে। ২০২১ সালের তুলনায় এই হার অনেক বেশি। 

এছাড়া, চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত হাঙ্গেরি সীমান্তে এক লাখ পাঁচ হাজারেরও বেশি অনিয়মিত অভিবাসীকে আটকে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। কট্টর অভিবাসন নীতি অনুসরণ করা ইউরোপের দেশটির সীমান্ত পাড়ি দেয়া বর্তমানে অভিবাসীদের কাছে একটি অসাধ্য কাজে পরিণত হয়েছে।

আরও পড়ুন>>হাঙ্গেরিতে ফের ক্ষমতায় অভিবাসীবিরোধী অর্বান

এনজিও ও অধিকার সংগঠনগুলোর টানা সমালোচনা এবং ইউরোপীয় আদালতের বারবার নিন্দা সত্ত্বেও কট্টর জাতীয়তাবাদী প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অর্বানের অভিবাসন বিরোধী আচরণের কোনো পরিবর্তন হয়নি৷

তবে, ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরুর পর প্রবল জনমতের কারণে তিনি আশ্রয় পদ্ধতি শিথিল করতে এক প্রকার বাধ্য হয়েছেন৷ সংঘাতের শিকার ইউক্রেনীয় বাস্তুচ্যুতদের জন্য দেশের সীমানা খুলতে সম্মত হয়েছেন অর্বান৷

পড়ুন>>হাঙ্গেরিতে ইউরোপের বাইরের শরণার্থীদের অবহেলা

বর্তমানে দেশটিতে অবস্থান করা ইউক্রেনীয়দের বেসরকারি সংগঠন, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, অভিবাসন সংস্থা এবং সাধারণ মানুষ সাহায্য করছেন৷ 


এমএইউ/এআই 


 

অন্যান্য প্রতিবেদন