(ফাইল ছবি) ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের একটি বন্দরে অভিবাসীদের নামার দৃশ্য। ছবি: IMAGO/Agencia EFE
(ফাইল ছবি) ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের একটি বন্দরে অভিবাসীদের নামার দৃশ্য। ছবি: IMAGO/Agencia EFE

রোববার সন্ধা থেকে সোমবার রাত পর্যন্ত উদ্ধার অভিযানে ক্যানারি উপকূলে একটি নৌকায় তিন অভিবাসীর মরদেহ পেয়েছে স্প্যানিশ কর্তৃপক্ষ৷ পাশাপাশি বেঁচে যাওয়া ৪৫ অভিবাসীকেও উদ্ধার করা হয়েছে৷

ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের বিপজ্জনক অভিবাসন রুটে আবারও প্রাণ গেল অভিবাসীদের৷ ১৪ আগস্ট সন্ধ্যা থেকে ১৫ আগস্ট রাত পর্যন্ত স্প্যানিশ উদ্ধারকর্মীরা ফুয়ের্তেভেঞ্চুরার গ্রান তারাজালের কাছে একটি নৌকায় তিন অভিবাসীর মরদেহ পেয়েছেন৷  

অভিবাসী বোঝাই নৌকা থেকে ৪২ জন পুরুষ, দুইজন নারী ও এক শিশুসহ মোট ৪৫ জনকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷ 

স্প্যানিশ কোস্ট গার্ডের একজন মুখপাত্র বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেছেন, জীবিতদের মধ্যে একজন সাব-সাহারা আফ্রিকার, বাকিরা সবাই মরক্কোর নাগরিক৷

পড়ুন>>স্পেনের সংশোধিত অভিবাসন আইনে যেসব সুবিধা

তিনি টুইটারে আরও জানান, ‘‘উদ্ধারকৃতদের মধ্যে ছয়জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে, তাদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা গুরুতর৷ 

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম দিয়ারিও ডি আভিসোস জানিয়েছে, উদ্ধার অভিযান শেষে ভোর সাড়ে তিনটার দিকে ক্যানারি দ্বীপের পুয়ের্তো দেল রোজারিওতে অভিবাসীদের নিয়ে আসা হয়৷ 

সোমবার মধ্যরাতের পর ফুয়ের্তেভেনতুরা দ্বীপের কাছাকাছি একটি জায়গায় অভিবাসী বোঝাই নৌকাটিকে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় চিহ্নিত করে স্প্যানিশ কর্তৃপক্ষ৷ 

পড়ুন>>মেলিলায় সেই অভিবাসীরা ‘শ্বাসরোধ’ হওয়ায় মারা গেছেন: মরক্কো

আটলান্টিক মহাসাগর পাড়ি দিয়ে ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জে পৌঁছাতে অভিবাসীদের প্রচণ্ড ঝুঁকির মধ্য দিয়ে যেতে হয়৷ অস্থায়ী নৌকা, খাবারের অভাব এবং অসুস্থ যাত্রীদের কারণে নৌযানটির অবস্থা অত্যন্ত কঠিন হয়ে উঠেছিল৷ 

এর আগে ৯ আগস্ট অন্য একটি নৌকায় একজন অভিবাসীকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়৷ সে সময় একই নৌকা থেকে মোট ৬১ জন যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়৷ গ্রান ক্যানারিয়া দ্বীপের আর্গুইনগুইন বন্দরে অবতরণের সময় পুলিশ কাপড়ের স্তূপের নীচ থেকে মৃত অভিবাসীে লাশ খুঁজে পায়৷ এর আগের দিন স্প্যানিশ কোস্টগার্ড আরো ২৭ জন যাত্রীকে সমুদ্র থেকে উদ্ধার করে, তাদের মধ্যে দুইজন তীরে পৌঁছানোর আগেই মৃত্যুবরণ করেন৷  


প্রবল বাতাস ও স্রোতের কারণে স্পেনের ক্যানারি অভিমুখে যাত্রা করা রূটে নৌকাডুবির ঘটনা বাড়ছে৷ ১৫জুলাই ল্যানজারোট দ্বীপের কাছে একটি নৌকায় চার বছরের শিশুসহ দুইজনকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়৷ 

সবশেষ ২৫ জুলাই মরক্কোর দক্ষিণ উপকূলে একটি অস্থায়ী নৌকা ডুবে যাওয়ার পর আট অভিবাসী নিহত হয়৷

স্প্যানিশ এনজিও ক্যামিনান্দো ফ্রন্টেরাসের তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ সালের প্রথমার্ধে প্রায় ৮০০ মানুষ এই পথে প্রাণ হারিয়েছেন, জানুয়ারি থেকে জুনের মধ্যে প্রতিদিন গড়ে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে৷ 


এমএইউ/এফএস


 

অন্যান্য প্রতিবেদন