(ফাইল ছবি) মাল্টার সমুদ্র উপকূলে অভিবাসীদের বহনকরা উপকূলরক্ষী বাহিনীর একটি টহল নৌযান৷ ছবি: রয়টার্স
(ফাইল ছবি) মাল্টার সমুদ্র উপকূলে অভিবাসীদের বহনকরা উপকূলরক্ষী বাহিনীর একটি টহল নৌযান৷ ছবি: রয়টার্স

নৌকায় ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে মানবপাচার করার অভিযোগ আনা হয়েছে মাল্টায় বাস করা এক সিরীয় নাগরিকের বিরুদ্ধে৷ পুলিশকে উদ্ধৃত করে মাল্টার গণমাধ্যম জানিয়েছে, এ বিষয়ে তদন্ত এখনও চলছে এবং আরো গ্রেপ্তারের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না৷

স্থানীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, সোমবার আদালতে এই সিরীয় নাগরিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়৷ তিনি মাল্টায় একদল অনিয়মিত অভিবাসীকে নিয়ে আসার প্রক্রিয়া সমন্বয় করেছেন৷

১৩ এবং ১৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে লিবিয়ার ডেলিমারা বে থেকে একটি নৌকায় বেশ কিছু অনিয়মিত অভিবাসী মাল্টায় এসে পৌঁছান৷ তখন থেকেই এ নিয়ে তদন্ত চালাচ্ছে মাল্টা পুলিশ৷

পুলিশ জানিয়েছে, তদন্তের মূল লক্ষ্য কারা এই অভিবাসী আগমনের বিষয়টি সমন্বয় করেছে৷ মাল্টা ইনডিপেনডেন্ট জানিয়েছে, তদন্ত এখনও চলছে এবং সিরীয় নাগরিক ছাড়া আরো অনেকেই গ্রেপ্তার হতে পারেন৷

মাল্টা টুডে এর দেয়া তথ্যমতে, গ্রেপ্তার হওয়া সিরীয় নাগরিক জিজ্ঞাসাবাদে তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ স্বীকার করেছেন৷ তদন্তকারীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এই মামলার বিস্তারিত এখনই জনসম্মুখে প্রকাশ না করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত৷ মামলার বাকি প্রক্রিয়া রুদ্ধদার হবে বলেও জানা গিয়েছে৷

ম্যাজিস্ট্রেট ক্লেয়ার স্টাফ্রেস জামিটের আদালতে এই মামলার শুনানি চলছে৷ অভিযুক্তের পক্ষে শুনানিতে অংশ নিচ্ছেন আইনজীবী আর্থার আজোপার্দি এবং জ্যাকব মাগ্রি৷

অনিয়মিত অভিবাসীদের বিষয়ে কঠোর হচ্ছে মাল্টা

২০২০ সালে ভূমধ্যসাগরে অভিবাসী উদ্ধার অভিযান নিয়ে কঠোর অবস্থান নেয় মা৷ ইটালির সিসিলি এবং উত্তর আফ্রিকা উপকূলের মধ্যে অবস্থিত এই দ্বীপরাষ্ট্রটি লিবিয়ার কোস্ট গার্ডের সঙ্গে সমন্বয়ে বেশ কিছু অভিবাসীকে ফেরতও পাঠিয়েছে৷ এসব পুশব্যাকের ক্ষেত্রে বেশ কিছু অভিবাসীর মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে৷

২০২০ সালের এপ্রিলে মাল্টা সরকার জানায়, ‘‘নৌকা, জাহাজ বা অন্য কোনো নৌযানে থাকা ‘নিষিদ্ধ অভিবাসীদের’ উদ্ধার বা সাগরে উদ্ধার হওয়া কোনো ব্যক্তিকে মালটার ভূখণ্ডে ‘নিরাপদ আশ্রয়’ দেয়ার নিশ্চয়তা দিতে পারবে না দেশটি৷’’

এডিকে/কেএম

 

অন্যান্য প্রতিবেদন