চেক প্রজাতন্ত্রে আসা অভিবাসীদের একটি দল। ছবি: রয়টার্স
চেক প্রজাতন্ত্রে আসা অভিবাসীদের একটি দল। ছবি: রয়টার্স

অনিয়মিত অভিবাসীদের প্রবেশ ঠেকাতে অস্থায়ীভাবে স্লোভাকিয়া সীমান্তে পুনরায় নজরদারি ব্যবস্থা চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাগ। শেঙ্গেন জোনের দেশগুলোতে সাধারণত এই ব্যবস্থা না থাকলেও জরুরি পরিস্থিতিতে সদস্য রাষ্ট্রগুলো সাময়িক সময়ের জন্য এ ধরনের উদ্যোগ নিতে পারে।

চেক কর্মকর্তারা সোমবার ঘোষণা করেছে, সীমান্তে অনিয়মিত অভিবাসন বৃদ্ধির প্রতিক্রিয়া হিসাবে স্লোভাকিয়ার সাথে থাকা সীমান্তে অস্থায়ীভাবে নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা পুনঃস্থাপন করা হবে।  

নতুন ব্যবস্থাটি বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হবে বলে জানানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে এই ব্যবস্থাটি ১০ দিনের জন্য স্থায়ী হবে এবং পরিস্থিতি বিবেচনায় পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে প্রাগ।

সাময়িক এই নিরাপত্তা যাচাই পদ্ধতি বাস্তবায়নের জন্য মোট ৫৬০ জন পুলিশ ও কাস্টমস অফিসার মোতায়েন করা হবে।

আরও পড়ুন>>“ইউরোপে আফগান শরণার্থীদেরদের জন্য কোনো জায়গা নেই”: চেক প্রধানমন্ত্রী

এই সিদ্ধন্তের আওতায় ২৫১ কিলোমিটার দীর্ঘ নির্দিষ্ট সীমান্ত ছাড়া অন্য যে কোনও সীমান্ত দিয়ে নাগরিক ও অভিবাসীদের সীমান্ত অতিক্রম নিষিদ্ধ করা হবে। তবে সীমান্ত এলাকায় কর্মরত কৃষক, বনকর্মী ও জেলেদের ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। 

অপরদিকে স্লোভাকিয়ার সরকার মঙ্গলবার বলেছে, চেক প্রজাতন্ত্রের সিদ্ধান্ত আমরা গ্রহণ করেছি৷ তবে এটি নিয়ে তারা ইউরোপীয় ইউনিয়ন পর্যায়ে বিশদ আলোচনা করতে চায়।

ট্রানজিট জোন

চেক প্রজাতন্ত্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ভিট রাকুসান গণমাধ্যমকে বলেন, এ বছর প্রবেশকারী অনিবন্ধিত অভিবাসীর সংখ্যা ১২০০ শতাংশ বেড়েছে। এদের বেশিরভাগই সিরিয়া ও তুরস্ক থেকে আসা।

রাকুসান আরও বলেন, “চলতি বছর আমরা নজিরবিহীন পরিস্থিতি পার করছি। ২০২২ সালের শুরু থেকে পুলিশ ১১ হাজারেরও বেশি অনিয়মিত অভিবাসীকে আটক করেছে।”

পড়ুন>>কাজ না করলে ইউক্রেনীয় শরণার্থীদের সুবিধা দেবে না চেক প্রজাতন্ত্র!

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, “শরণার্থীরা পশ্চিম ইউরোপে যাওয়ার পথে চেক প্রজাতন্ত্রকে অস্থায়ী ট্রানজিট জোন হিসেবে ব্যবহার করছে। অনিয়মিতদের বেশিরভাগই জার্মানিতে প্রবেশের লক্ষ্যে চেক ভূখণ্ড ব্যবহার করে। ফলে সীমান্তের জার্মান অংশেও অস্থিরতা বাড়ছে।”

প্রাগ জানিয়েছে, এই বছর চেক ভূখণ্ডে প্রায় ১২ হাজার অনিয়মিত অভিবাসীকে আটকের পর এই ব্যবস্থাটি প্রয়োজনীয় ছিল। ২০১৫ সালে সিরিয়া থেকে ইউরোপের দিকে আসা অভিবাসন প্রত্যাশীর সংখ্যার তুলনায় বর্তমান হার অনেক বেশি।

আরও পড়ুন>>নির্বাচনে কট্টর ডানের জয়ে যেসব প্রভাব পড়বে ইটালির অভিবাসন নীতিতে

অনিয়মিত অভিবাসনের বিরুদ্ধে অভিযানের অংশ হিসেবে এ বছর মোট ১২৫ জন মানবপাচারকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এটি আগের বছরগুলির তুলনায় উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি। 


এমএইউ/জেডএ (এপি এবং রয়টার্স)


 

অন্যান্য প্রতিবেদন