ফাইল থেকে : পোলিশ-জার্মান সীমান্তে পুলিশ চেক করছে৷ ছবি: পিকচার অ্যালায়েন্স
ফাইল থেকে : পোলিশ-জার্মান সীমান্তে পুলিশ চেক করছে৷ ছবি: পিকচার অ্যালায়েন্স

জার্মান ফেডারেল পুলিশ এবং জার্মান-পোলিশ সীমান্তের শুল্কবিভাগের কর্মকর্তারা শুক্রবার একটি রেফ্রিজারেটেড লরি থেকে ১৮ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করেছেন। অভিবাসী ওই দলে দুই শিশু এবং দুজন সঙ্গীহীন অপ্রাপ্তবয়স্কও ছিল।

জার্মান ফেডারেল পুলিশ এবং শুল্ক বিভাগের কর্মকর্তারা শুক্রবার (১৪ অক্টোবর) ব্র্যান্ডেনবুর্গের জার্মান-পোলিশ সীমান্ত এলাকায় জার্মান ভূখণ্ডে একটি রেফ্রিজারেটেড লরির পিছনে ১৮ জন অভিবাসীকে দেখতে পেয়ে তাদের উদ্ধার করেন।

জার্মানির সাপ্তাহিক সংবাদপত্র ডি জাইটের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দলের সবাই রেফ্রিজারেটেড লরিটির বায়ুরোধক কৌটার মধ্যে করে সীমান্ত পেরিয়ে এসেছিল। জার্মান বার্তা সংস্থা ডিপিএ জানিয়েছে, শুল্ক বিভাগের কর্মকর্তারা রুটিনমাফিক নজরদারির সময় গুবেন শহরে এই লরিটি দেখতে পান।

পাঁচ এবং ১০ বছর বয়সি দুটি শিশু এই দলের সঙ্গে ছিল। পাশাপাশি ১৪ বছর বয়সি দুই জন সঙ্গীহীন অপ্রাপ্তবয়স্কও ছিল ওই দলে । জার্মান পুলিশ জানিয়েছে, অভিবাসীরা মূলত ইরান, ইরাক এবং আফগানিস্তানের নাগরিক। ডিপিএ জানিয়েছে, অভিবাসীদের মধ্যে ১২ জন ইরানের, চারজন আফগানিস্তানের এবং দুইজন ইরাকের নাগরিক। তাদের বয়স পাঁচ থেকে ৪৪ বছরের মধ্যে।

টাটকা বাতাস বা আলো ছিল না লরিতে

জার্মান পুলিশ জানিয়েছে, অভিবাসীরা যে বিশাল কৌটাগুলির মধ্যে লুকিয়ে ছিলেন সেখানে কোনো টাটকা বাতাস বা আলো ছিল না। ডি জাইট জানিয়েছে, উদ্ধার হওয়া অভিবাসীরা খাবার এবং পানির সংকটে ছিলেন। শৌচাগারেও যেতে পারেননি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওই কৌটাগুলির মধ্যেই ছিলেন তারা। 

অভিবাসীদের উদ্ধার করে আইসেনহ্যুটেনস্ট্যাড শহরের অভ্যর্থনা কেন্দ্রে নিয়ে যায় জার্মান পুলিশ। দুই অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোরকে জার্মানির যুব কর্তৃপক্ষর কাছে পাঠানো হয়।

ডিপিএ জানিয়েছে, ৩২ বছর বয়সী লিথুয়ানিয়ার নাগরিক লরির চালককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

আরকেসি/কেএম (ডিপিএ)

 

অন্যান্য প্রতিবেদন