(ফাইল ছবি) স্কর্পিয়ান ছদ্মনামের এক শীর্ষ ইরাকি মানবপাচারকারীকে ধরিয়ে দিতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যের জাতীয় অপরাধ সংস্থা (এনসিএ)। ছবি: রয়টার্স
(ফাইল ছবি) স্কর্পিয়ান ছদ্মনামের এক শীর্ষ ইরাকি মানবপাচারকারীকে ধরিয়ে দিতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে যুক্তরাজ্যের জাতীয় অপরাধ সংস্থা (এনসিএ)। ছবি: রয়টার্স

ফরাসি, ব্রিটিশ, বেলজিয়ান এবং ডাচ পুলিশের মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় থাকা এক শীর্ষ মানব পাচারকারীকে খুঁজছে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পুলিশের কাছে ‘স্কর্পিয়ান’ নামে পরিচিত এই ইরাকি পাচারকারীকে গত মাসে তার অনুপস্থিতিতে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয় বেলজিয়ামের একটি আদালত।

সাজাপ্রাপ্ত ইরাকি মানবপাচারকারী বর্জান কামাল মজিদ ইউরোপের পুলিশের কাছে ‘স্কর্পিয়ান’ বা বিচ্ছু নামে পরিচিত। আলোচিত এই শীর্ষ মানবপাচারকারীকে হন্য হয়ে খুঁজছে ইউরোপের দেশগুলোর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। 

শতাধিক অভিবাসীকে বিভিন্ন উপায়ে ব্রিটিশ উপকূলে পাচার করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

ইংল্যান্ডের জাতীয় অপরাধ সংস্থা এনসিএ ইতিমধ্যে এই ৩৬ বছর বয়সি ইরাকিকে ধরিয়ে দিতে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। 



এনসিএ জানিয়েছে, বারজান কামাল মাজিদ একটি সন্দেহভাজন বিশাল মানব পাচার নেটওয়ার্কের প্রধান। তিনি বেশ কয়েক বছর ধরে ফরাসি পুলিশসহ ইউরোপীয় তদন্তকারীদের নজরে রয়েছেন। 

আরও পড়ুন>>চ্যানেলে অভিবাসী ঠেকাতে ফ্রান্স-যুক্তরাজ্য নতুন চুক্তি

পুলিশ তাকে "স্কর্পিয়ান" ডাকনাম দেয়ার মূল কারণ হল অনেক অভিবাসীদের ফোনে তার মোবাইল নাম্বারটি এই ছদ্মনামে লিপিবদ্ধ ছিল।

সংগঠিত পাচারের ঘটনায় চলা একটি যৌথ তদন্তের সময় অভিবাসীদের কাছ থেকে এই তথ্য খুঁজে পায় ইইউ দেশগুলোর পুলিশ। অস্থায়ী নৌকা, ট্রাক এবং শিপিং কন্টেইনারে তিনি শতাধিক অভিবাসীকে পাচার করেছেন। 

১০ বছরের জেল এবং প্রায় এক মিলিয়ন ইউরো জরিমানা

২০১৮ সালের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের নভেম্বরের মধ্যে এই পাচারকারী মোট ৩১টি বেআইনি পারাপারের আয়োজন করেন বলে ইইউ দেশগুলোর পুলিশের তদন্তে উঠে আসে। 

পড়ুন>>২০২৩ সালেও আকাশপথে চ্যানেলে নজরদারি করবে ফ্রন্টেক্স

২০১৫ সালে এই ব্যক্তিকে যুক্তরাজ্য থেকে ইরাকের কুর্দিস্তানে ফেরত পাঠানো হয়েছিল। এরপর থেকে ইউরোপীয় পুলিশ তার খোঁজ হারিয়ে ফেলে।

গত মাসে বেলজিয়ামের ব্রুজ শহরের আদালত তার অনুপস্থিতিতে তাকে ১০ বছরের কারাদণ্ড এবং নয় লাখ ৬৮ হাজার ইউরো জরিমানা করে। পাশাপাশি তার সহযোগীদের মধ্যে ১৭ জনকে দোষী সাব্যস্ত করে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল।

আরও পড়ুন>>আশ্রয় আবেদন যাচাইয়ে সুপারমার্কেটের অদক্ষ কর্মী নিয়োগ যুক্তরাজ্যে!

একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে যুক্তরাজ্যের জাতীয় অপরাধ সংস্থা প্রেস এনসিএ প্রধান মার্টিন ক্লার্ক বলেন, “বারজান কামাল মজিদের অবস্থান সম্পর্কে যেকোনো তথ্য থাকলে সেটি প্রদান করতে আমাদের সাথে অথবা অবিলম্বে বেলজিয়ান কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।”

তিনি আরও যোগ করেন, “যদিও আদালত তার অনুপস্থিতিতে দোষী সাব্যস্ত করেছে। কিন্তু সত্যিকারের ন্যায়বিচার তখনই প্রতিষ্ঠিত হবে যখন তিনি তার কারাদণ্ড ভোগ করতে বেলজিয়ামের মাটিতে ফিরে আসবেন।”


এমএইউ/এআই (ইউরোপ১, ইয়াহু)






 

অন্যান্য প্রতিবেদন