উদ্ধার অভিযান

রোববার ৪ ও সোমবার ৫ ডিসেম্বর ভূমধ্যসাগর থেকে ১৬৪ জন অভিবাসীকে উদ্ধার করে  এমএসএফ এর উদ্ধার জাহাজ জিও ব্যারেন্টস। ছবি: এমএসএফ
২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে গ্রিসের লেসবোস দ্বীপে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কর্মরত অবস্থায় ফরাসি উদ্ধারকর্মী আর্নো বানো। ছবি: জুলি বুরদা
প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে ২৩৪ জন অভিবাসী নিয়ে সাগরে ভাসা ওশান ভাইকিং জাহাজ অবশেষে ফ্রান্সে প্রবেশের অনুমতি পেয়েছে। ছবি: এসওএস মেডিটারানে
(ফাইল ছবি) মাল্টা কর্তৃপক্ষের হাতে আটক একটি অভিবাসী নৌকা। ছবি: এমএসএফ
(ফাইল ছবি) এভ্রোস নদী পেরিয়ে অনিয়মিত পথে তুরস্ক থেকে গ্রিসে প্রবেশ করেন অভিবাসীরা৷
(ফাইল ছবি) সমুদ্রে ঝুঁকিতে থাকা অভিবাসীদের একটি দল। ছবি: পিকচার এলায়েন্স
এজিয়ান সাগরে পুশব্যাক হওয়া অভিবাসীদের কয়েকটি দল। ছবি: এজিয়ান বোট রিপোর্ট
ফাইল ফটো: চলতি বছর ইতোমধ্যে ৩০ হাজারের বেশি আশ্রয়প্রার্থী নৌকায় করে ইটালি পৌঁছেছেন | ছবি: পিকচার অ্যালায়েন্স
মধ্য ভূমধ্যসাগরে অভিবাসীদের উদ্ধারে নিয়োজিত দ্য ওশান ভাইকিং৷ ছবি : পিকচার অ্যালায়েন্স
টিউনিশিয়ার উপকূল থেকে ইটালির লাম্পেদুসার দুরত্ব ১৪০ কিলোমিটার৷ ছবি: ফ্লিকার
১২ আগস্ট ভূমধ্যসাগরের লাম্পেদুসা উপকুলে ওপেন আর্মস পরিচালিত উদ্ধার অভিযানের দৃশ্য। ছবি: টুইটার/ওপেন আর্মস
নর্থ মেসিডোনিয়া-গ্রিস সীমান্ত৷ ছবি: ইমাগো/জুমা প্রেস